মেইন ম্যেনু

শেখ হাসিনাকে গালি দিচ্ছি না

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ করে হেফাজতে ইসলামের আমির ও বাংলাদেশ কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান শাহ আহমদ শফী বলেছেন, ‘আমরা শেখ হাসিনাকে গালি দিচ্ছি না। প্রার্থনা করছি আল্লাহ তাকে হেদায়েত দান করুক।’
রোববার সন্ধ্যায় শহরের মাসদাইর এলাকায় অবস্থিত কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও ইসলামী মহাসম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্কাইপের মাধ্যমে তিনি এ কথা বলেন।
বাংলাদেশ কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড (বেফাক) নারায়ণগঞ্জ জেলার উদ্যোগে আয়োজিত ওই অনুষ্ঠিত আহমদ শফী বলেন, ‘আমাদের দেশে কিছু নাস্তিক আছে আর বাকিরা সবাই আস্তিক। আমরা শেখ হাসিনাকে গালি দিচ্ছি না। আমরা আওয়ামী লীগকেও গালি দিচ্ছি না। আমরা আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করছি শেখ হাসিনাকে হেদায়েত দান করুক।’
আওয়ামী লীগকে গালি না দেয়ার কারণ উল্লেখ করে শফী বলেন, ‘আওয়ামী লীগকে গালি দিবো কেন, তাদের অনেক লোক আছেন যারা আমাদের মাদরাসায় সহযোগিতা করেন।’
হেফাজতে ইসলামের আমির এর আগে বলেন, ‘যারা ইসলামের ৫টি বিষয়কে হেফাজত করে তারাই মুসলমান। যারা হেফাজত করেন না তারা অমুসলমান। যারা আল্লাহকে অস্বীকার করেন তারা নাস্তিক।’
নারায়ণগঞ্জে ইসলামী মহাসম্মেলনে যোগ দিতে এর আগে শনিবার তিনি চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় শাহজালাল বিমান বন্দরে এসে নামেন। কিন্তু রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে তাকে ফের বিমানে চট্টগ্রামে ফেরত পাঠানো হয়। এ কারণে তিনি স্কাইপির মাধ্যমে বক্তব্য দেন।
সম্মেলনে উপস্থিত হন- বেফাক-এর মহাসচিব আবদুল জব্বার জাহানাবাদী, বিশিষ্ট আলেম ও হবিগঞ্জ নূরে মদনী মাদরাসার মুহতামিম নুরুল ইসলাম ওলীপুরী, হেফাজত নেতা ও মিরপুরের জামিয়া কাশেমীয় মাদরাসার মুহতামিম জুনায়েদ আল হাবীব, ফরিদাবাদ মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা আবদুল কুদ্দুস, সাইনবোর্ড জামিয়া আশরাফিয়া মাদরাসার মুহতামিম আবদুল বারী, মাদানীনগর মাদরাসার মুহতামিম ফয়জুল্লাহ সন্দ্বিপী, রূপগঞ্জের জামিয়া দারুল কুরআন-এর মুহতামিম বদরুল আলম সিলেটি, সোনারগাঁও পরমেশদী মাদরাসার শাইখুল হাদিস আবদুল হাতেম, ডিআইটি কেন্দ্রীয় রেলওয়ে জামে মসজিদের খতিব ও জেলা হেফাজতের আমির মাওলানা আবদুল আউয়াল, সাইনবোর্ড জামিয়াতু ইবরাহীমের মুহতামিম শফিকুল ইসলাস, নূর হোসাইন কাশেমী, মুফতি আজিজুল হক, আবদুল আউয়াল, নুরুল ইসলাম জিহাদী, আবু সায়েম খালেদ প্রমুখ।
নারায়ণগঞ্জ জেলা বেফাক এর সভাপতি আবদুল কাদিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলন পরিচালনা করেন মাওলানা ফেরদাউসুর রহমান, আবদুল রহমান ও আনিস আনসারী।






মন্তব্য চালু নেই