মেইন ম্যেনু

রাবি ছাত্রীকে পেটালেন ছাত্রলীগ নেতা

পূর্ব শত্রুতার জের ধরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) এক ছাত্রীকে মারধর করলেন ওবায়দুল হক কায়েস নামের ছাত্রলীগের এক নেতা।

সোমবার বিকেল সোয়া ৪টার সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ্ কলা ভবনের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

কায়েস বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজী বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি। আর ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন কাজলা বাজার থেকে কেনাকাটা শেষে ওই ছাত্রী রিকশায় করে মুন্নুজান হলে ফিরছিলেন। রিকশাটি ইবলিশ চত্বর এলাকায় পৌঁছালে কায়েস রিকশা থামিয়ে ওই ছাত্রীকে নামতে বাধ্য করেন। পরে কায়েস তাকে শহীদুল্লাহ কলা ভবনের সামনে নিয়ে গিয়ে এলোপাথাড়ি চর-থাপ্পড় মারতে শুরু করেন। এতে ওই ছাত্রী মাটিতে পড়ে যান।

পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর সিরাজুল ইসলাম তাকে উদ্ধার করে হলে পৌঁছে দেন।

ভুক্তভোগী ছাত্রী জানান, কায়েসের সঙ্গে এক সময় তার ভালো বন্ধুত্ব ছিল। তবে বেশ কিছুদিন ধরে সম্পর্ক খারাপ যাচ্ছিল। এর জের ধরেই কায়েস তাকে রিকশা থেকে নামিয়ে মারধর করেছ। তিনি আরো অভিযোগ করেন, কায়েস তাকে এর আগেও একাধিকবার মারধর করেছে। তবে লোকলজ্জার ভয়ে তিনি কিছু বলতে পারেননি।

এদিকে মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করে ছাত্রলীগ নেতা কায়েস বলেন, ‘ওই ছাত্রীর সঙ্গে ব্যক্তিগত কিছু বিষয় নিয়ে কথা বলছিলাম। মারধর করার প্রশ্নই আসে না।’

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর সিরাজুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে মেয়েটিকে হলে পৌঁছে দেয়া হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।






মন্তব্য চালু নেই