মেইন ম্যেনু

রাবি আবাসিক হলে ছাত্রলীগ সাড়ে তিনশ সিট দখল করেছে

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদের জন্য আবাসিক হলগুলোর প্রায় প্রতিটি হলেই ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সাড়ে তিনশতেরও বেশি অবৈধভাবে সিট দখল করেছে। এসব সিটের বেশির ভাগই ফাঁকা রয়েছে। এদিকে ছাত্রলীগের অবৈধ সিট দখলের কারণে অনেক সাধারণ শিক্ষার্থী আবাসিকতা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। নতুনভাবে শুরু হয়েছে ছাত্রলীগের সিট বাণিজ্য।

শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সময় হল প্রাধ্যক্ষ এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করলেও তাতে কোন কাজ হচ্ছে না। অবৈধভাবে ছাত্রলীগ সিট দখলের কারণে প্রতি মাসে অন্তত ৪০ হাজার টাকা সিট ভাড়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছে হল প্রশাসন। এদিকে প্রশাসন থেকে হলে সিট বরাদ্দ দিতে গিয়েও ছাত্রলীগের চাহিদা মতো কক্ষ দিতে হচ্ছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভোস্ট কাউন্সিলের আহ্বায়ক ও শাহ মখদুম হল প্রাধ্যক্ষ ইমতিয়াহ আহমেদ বলেন, সিট দখলের নিয়ম অনেক আগে থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ে চলে আসছে। হলের কক্ষগুলোকে উদ্ধার করার জন্য সকল হল প্রাধ্যক্ষ, আবাসিক শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের এক সাথে এগিয়ে আসতে হবে জানান তিনি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সবচেয়ে বেশি সিট নিজেদের দখলে রেখেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধ শেখ মুজিবুর রহমান হলে। ওই হলে চার সিটের অন্তত ১৫টি কক্ষ তারা অবৈধভাবে নিজেদের দখলে রেখেছেন। বর্তমানে ওই হলের ২১৬ নং কক্ষ এবং ২১৯ থেকে ২৩২ পর্যন্ত প্রতিটি কক্ষ তারা অবৈধভাবে দখল করে রেখেছে। এছাড়াও আরও কয়েকটি কক্ষ তাদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। শের-ই-বাংলা এ কে ফজলুল হক হলে বর্তমানে ৪০টি সিট দখলে রয়েছে।

তার মধ্যে এক সিটের ৯টি এবং চার সিটের ৭টি। শাহ মখদুম হলে অন্তত ৩৫টি সিট নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রেখেছেন। তার মধ্যে তিন সিটের ১১টি ছাড়াও আরও একটি কক্ষ তাদের নিয়ন্ত্রণে বলে জানা গেছে। আমীর আলী হলে তিন সিটের ৮টি ছাড়াও আরও বেশ কয়েকটি কক্ষ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাদের নিয়ন্ত্রণে আছে বলে জানা গেছে।






মন্তব্য চালু নেই