মেইন ম্যেনু

যেভাবে বুঝবেন ক্যারিয়ার সর্বনাশ করছে আপনার সংসারের!

ক্যারিয়ার নিয়ে ইদানিং নারী-পুরুষ সবাই কমবেশি সচেতন। ক্যারিয়ারটাকে গড়ার জন্য দিনের একট বড় সময় কাটানো হয়ে কর্মক্ষেত্রে। কিন্তু এই ক্যারিয়ারই অনেক সময়ে হয়ে দাঁড়ায় সম্পর্ক নষ্ট হওয়ার কারণ। জেনে নিন কিছু লক্ষণ সম্পর্কে যেগুলো মিলে গেলে বুঝবেন আপনার অতিরিক্ত ক্যারিয়ার প্রেম সর্বনাশ করছে আপনার সংসারের।

সঙ্গীর সাথে প্রতিদিন খুব অল্প সময় কাটানো হয়
ক্যারিয়ারের দিকে এতোটাই বেশি মনোযোগ দিয়ে ফেলেছেন যে সঙ্গীকে দেয়ার মতো সময় পান না আপনি। সঙ্গীর ছোটখাটো আবদারগুলোও বিরক্ত লাগে আপনার কাছে। কারণ আপনি প্রচন্ড ব্যস্ত। কারো দিকে তাকানোর কিংবা কারো কথা ভাবার সময় নেই আপনার। শুধুমাত্র সম্পর্কটা কোনোমতে টিকিয়ে রেখেছেন আপনি। যদি এমন অবস্থা হয়ে থাকে আপনার তাহলে জেনে নিন আপনি নিজেই আপনার জীবনের ক্ষতি করছেন।

বছরে একবারও দূরে কোথাও ঘুরতে যাওয়ার সুযোগ হয়না
মাঝে মাঝে নিজের সঙ্গীটিকে নিয়ে একটু দূরে কোথাও বেড়াতে যেতে ভালোই লাগে। এতে দুজনের সম্পর্কটা আরো মজবুত হয়ে ওঠে। কিন্তু আপনি কি আপনার সঙ্গীকে নিয়ে বছরে একবারও কোথাও ঘুরতে যাওয়ার সময় করতে পারেন না? যদি তাই হয়ে থাকে তাহলে এখনই ভেবে দেখুন আপনি ক্যারিয়ার নিয়ে অতিরিক্ত বাড়াবাড়ি করছেন কিনা।

ক্লান্তির কারণে শারীরিক দূরত্ব
ক্যারিয়ার গড়ার জন্য সারাদিনই কর্মক্ষেত্রে বিরামহীন খাটুনি করছেন আপনি। ফলে দিনের শেষে ক্লান্তির কারণে সঙ্গীর সাথে শারীরিকভাবে ঘনিষ্টতা আর হয়না আগের মতো। সঙ্গীর ইচ্ছা থাকলেও আপনার একেবারেই ইচ্ছা করেনা ক্লান্ত শরীরে। যদি এরকম পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় তাহলে জেনে রাখুন আপনার ক্যারিয়ারই হতে পারে আপনার সংসারের অশান্তির কারণ।

সন্তানদের সাথে দূরত্ব
আপনার সন্তানদের সাথে আপনার দূরত্ব তৈরি হয়েছে? তারা আপনার চাইতে বেশি কি কাজের মেয়েটি বা পরিবারের অন্য কাউকে প্রাধান্য দিচ্ছে? যদি এমনটা হয়ে থাকে তাহলে আপনি আপনার সংসারের ক্ষতি করছেন শুধুমাত্র ক্যারিয়ারের নিয়ে বাড়াবাড়ি করার জন্য।

বিশেষ দিনগুলো ভুলে যাওয়া
প্রিয় সঙ্গীর জন্মদিন, বিবাহবার্ষিকী, বাচ্চার পরীক্ষা শুরু হওয়ার দিনটি ইত্যাদি নানান বিশেষ দিনগুলো কি ভুলে যাচ্ছেন ব্যস্ততার জন্য? জীবনের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই দিনগুলো ভুলে যেতে শুরু করলে আপনি নিজেই নিজের সংসারের অনেক বড় ক্ষতি করে ফেলছেন।

পারিবারিক অনুষ্ঠান/দাওয়াতে সময় না দিতে পারা
কর্মক্ষেত্রে অতিরিক্ত ব্যস্ততার কারণে কি আপনি পারিবারিক অনুষ্ঠানে কিংবা দাওয়াতে সময় দিতে পারছেন না? এমনকি নিজের বাবা,মা, শ্বশুরবাড়ি, ভাই,বোনদের বাসায় যাওয়ারও সময় নেই আপনার? এমনটা যদি হয়ে থাকে তাহলে আপনি নিজেই নিজের সংসারের অনেক বড় ক্ষতি করছেন।






মন্তব্য চালু নেই