মেইন ম্যেনু

যেভাবে ‘বডিবিল্ডার’ হলো ৮ বছর বয়সী শিশু !

১৫ বছর আগে বিশ্ব দরবারে আবিষ্কৃত হয়, ৮ বছর বয়সী বডিবিল্ডারের। যাকে সবাই লিটল হারকিউলিস নামে জানে। তার আসল নাম হল রিচার্ড সান্দ্রাক। তিনি বডি-বিল্ডারদের জন্য অনুপ্রেরণার সঞ্চার করে।

তার চরম দেহের আকার-আকৃতির কারণে তার পেপারের সামনের পাতায় ছাপা হয়। সে মাত্র ১১ বছর বয়সে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ছেলে হিসেবে রেকর্ড করেন।

এখন তার বয়স ২৩ বছর। বর্তমানে তার মাঝে ব্যাপক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। সে ভারোত্তোলন করা বন্ধ করে দিয়েছেন। তার মাথায় পনি টেইল তৈরি করেছেন এবং তিনি এখন মাদকও সেবন করেন।

তিনি প্রতিবেদককে জানান, “আমি এখন আর ভারোত্তোলন করি না। এখন এসব কাজ আমার কাছে বিরক্তিকর লাগে।” তিনি যদিও এখনও মূলধারায় সর্বস্বান্ত হননি। তিনি আরও বলেছেন, “আমি নিজেকে আগুনে সেট করেছি।”

তিনি এখন ইউনিভার্সাল স্টুডিওর হলিউড Waterworld দেখাতে একটি stuntman হিসাবে কাজ করে। রিচার্ডের জীবনের গল্পে একটি অন্ধকার দিক রয়েছে। তিনি যখন ছোট ছিলেন, তখন তার দেহের জন্য তার বাবা তাকে কঠোর পরিশ্রম করাতেন। তার কঠোর শাসনের জন্য আশেপাশের প্রতিবেশীরা তার তীব্র সমালোচনা করত। খুব অল্প বয়সেই তার উপর অনেক চাপ প্রয়োগ করা হত।

রিচার্ড এর বয়স যখন ১১ বছর হয় তখন তার বাবা পাভেলকে জেলে পাঠানো হয়, তার স্ত্রীর উপর নির্যাতন করার জন্য। তখন থেকেই রিচার্ড তার বাবার সাথে সকল সম্পর্ক ছিন্ন করে এবং শরীর পরিচর্যা করা ত্যাগ করেন।

যাইহোক, তিনি এখনও তার সাবেক খ্যাতি নিয়ে গর্বিত। তিনি বলেন, “আমি আমার অতীত নিয়ে অনেক গর্বিত। এটা এমন কিছু নয়, যে মানুষ না জানুক। আমি শুধু আমার একটি কাজের মধ্যে আটকিয়ে থাকতে চাই না।”

আসলে, তার ভবিষ্যৎ সম্পর্কে অনেক বড় ধরণের পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি কোয়ান্টাম বিজ্ঞানী বা নাসার একজন বিজ্ঞানী হতে চান।

সূত্র: মেট্রো।






মন্তব্য চালু নেই