মেইন ম্যেনু

মেসির জোড়া গোলে জয়ী আর্জেন্টিনা অপরাজিত গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন

প্রথম ম্যাচে গোলখরা কাটানোর পর দ্বিতীয় ম্যাচে করেছিলেন দলকে বাঁচানো অসাধারণ এক গোল। এবার নাইজেরিয়ার বিপক্ষে জোড়া গোল করেই আর্জেন্টিনাকে গ্রুপ সেরা করলেন লিওনেল মেসি। রোমাঞ্চকর এই ম্যাচে নাইজেরিয়াকে ৩-২ গোলে হারিয়েছে দুইবারের চ্যাম্পিয়নরা।

আর্জেন্টিনার জয়সূচক গোলটি করেন মার্কোস রোহো। দুবার সমতা ফেরালেও দলের হার ঠেকাতে পারেননি নাইজেরিয়ার ফরোয়ার্ড আহমাদ মুসা।

৯ পয়েন্ট নিয়ে যথারীতি শীর্ষে দুইবারের চ্যাম্পিয়নরা। হারলেও চার পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে তাদের সঙ্গী নাইজেরিয়া।
গ্রুপের অন্য ম্যাচে ইরানকে ৩-১ গোলে হারিয়ে সান্ত্বনার জয় পেয়েছে বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা।

গত বিশ্বকাপে বিশ্বকাপ দুর্দান্ত প্রচেষ্টা ঠেকিয়ে দিয়েছিলেন ভিনসেন্ট এনিয়ামা। এবার আর পারেননি, দুবার তাকে পরাস্ত করে প্রতিযোগিতায় গোলদাতাদের শীর্ষে উঠে এসেছেন মেসি। চার গোল করে সেখানে তার সঙ্গী ব্রাজিলের নেইমার।

বুধবার পোর্তো আলেগ্রের স্তাদিও বেইরা রিওতে তৃতীয় মিনিটেই এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা।

মাসচেরানোর পাস থেকে ডি বক্স ঢুকে জোরালো শট নিয়েছিলেন আনহেল দি মারিয়া। গোলরক্ষক ভিনসেন্ট এনিয়ামা পরাস্ত হলেও বল জালে যায়নি, বারে লেগে ফিরে আসে।

ফিরতি বলে সুযোগ পান মেসি। দুইজন ডিফেন্ডার এগিয়ে এসেছিলে কিন্তু রুখতে পারেননি মেসিকে। জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করে দলকে এগিয়ে নেন তিনি। প্রতিযোগিতায় নাইজেরিয়ার জালে এটাই প্রথম গোল।

গোল শোধ করতে বেশি সময় নেয়নি আফ্রিকার চ্যাম্পিয়নরা। পরের মিনিটে বাঁদিক থেকে কাটিয়ে ডি বক্সে ঢুকে ডান পায়ের কোনাকুনি শটে সের্হিও রোমেরোকে পরাস্ত করেন মুসা।

দশম মিনিটে ভালো একটি সুযোগ পেয়েছিলেন গনসালো হিগুয়াইন। মেসির নিখুঁত পাসটি কাজে লাগাতে তিনি। গোলরক্ষককে একা পেয়েও বাইরে মারেন নাপোলির এই স্ট্রাইকার।

২৫তম মিনিটে দি মারিয়ার পাস থেকে আরেকটি সুযোগ পেয়েছিল আর্জেন্টিনা। চেষ্টা করেছিলেন মেসি, কিন্তু পা ছোঁয়াতে পারেননি চারবারের বিশ্ব সেরা ফুটবলার।

পাঁচ মিনিট পর আচমকা শটে এনিয়ামার পরীক্ষা নিয়েছিলেন দি মারিয়া। কিন্তু বাঁদিকে ঝাপিয়ে পড়ে তাকে হতাশ করেন নাইজেরিয়ার গোলরক্ষক।

৪৪তম মিনিটে মেসির চমৎকার একটি ফ্রিকিক ঠেকিয়ে দিয়েছিলেন এনিয়ামা। কিন্তু দুই মিনিট পরের শটটি আর ঠেকাতে পারেননি।

প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে মেসিকে ফাউল করায় ফ্রিকিক দেন রেফারি। রক্ষণ দেয়ালের ওপর দিয়ে বাঁ পায়ের নিখুঁত শটে দলকে দ্বিতীয়বারের মতো এগিয়ে নেন আর্জেন্টিনার অধিনায়ক।

মেসির শটে পুরোপুরি বিভ্রান্ত হয়েছিলেন এনিয়ামা। ‘দেয়াল’ এর ওপর দিয়ে আসা বলটি দেখেন অনেক পরে। ততক্ষণে বল খুঁজে নেয় নাইজেরিয়ার জাল।

দ্বিতীয়ার্ধের ৪৭তম মিনিটে আবার নাইজেরিয়াকে সমতায় ফেরান মুসা। ডি বক্স থেকে জোরালো শটে গোল করেন তিনি।

সমতা ফেরানোর আনন্দ বেশিক্ষণ টেকেনি নাইজেরিয়া শিবিরে। ৫০তম মিনিটে লাভেস্সির কর্নার থেকে গারায়ের হেড রোহোর পায়ে লেগে জালে জড়ালে তৃতীয়বারের মতো এগিয়ে যায় দুইবারের চ্যাম্পিয়নরা।

৫৮তম মিনিটে রোহোর ক্রস লক্ষ্যে রাখতে পারেনি মেসি। রাখতে পারলেই হ্যাটট্রিক হয়ে যেতো তার। এর পাঁচ মিনিট পর অধিনায়ককে তুলে নেন সাবেইয়া।

৬২তম মিনিটে সমতা ফেরানোর সহজ সুযোগ পেয়েছিলেন পেয়েছিলেন জন ওবি মিকেল। একটু ইতস্তত করে যে শট নিলেন তা ফেরাতে কোনো সমস্যা হয়নি রোমেরোর।

৭৮তম মিনিটে বুদ্ধিদীপ্ত ফ্রিকিক থেকে গোল প্রায় পেয়েই যাচ্ছিলেন না নিয়ে টোকা দিয়ে দি মারিয়েকে বল দিয়ে ডি বক্সে ঢুকে পড়েছিলেন তিনি। ডিফেন্ডারদের মাথার ওপর দিয়ে তাকে বল দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু এনিয়ামাকে পরাস্ত করতে পারেননি তিনি।

পরের মিনিটে হ্যাটট্রিকের সুবর্ণ সুযোগ পেয়েছিলেন মুসা। কিন্তু এবার তার শট ঠেকিয়ে দিয়ে আর্জেন্টিনার ত্রাতা সাবালেতা।

খেলা শেষ হওয়ার পাঁচ মিনিট পর দারুণ প্রতি আক্রমণ থেকে দারুণ একটা সুযোগ পেয়েছিলেন দি মারিয়া। কিন্তু এবারো এনিয়ামাকে পরাস্ত করতে পারেননি রিয়াল মাদ্রিদ তারকা।

আগেই দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত হলেও দল নিয়ে কোনো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেননি সাবেয়া। শুরুর একাদশে কোনো পরিবর্তন আনেননি তিনি। তবে ৩৬তম মিনিটে চোটের কারণে তুলে নেন তিনি।

পয়েন্ট তালিকা গ্রুপ: এফ
দেশ ম্যাচ জয় ড্র হার পক্ষে গোল বিপক্ষে গোল গোল পার্থক্য পয়েন্ট
আর্জেন্টিনা ৩ ৩ ০ ০ ৬ ৩ +৩ ৯
নাইজেরিয়া ৩ ১ ১ ১ ৩ ৩ ০ ৪
বসনিয়া ৩ ১ ০ ২ ৪ ৪ ০ ৩
ইরান ৩ ০ ১ ২ ১ ৪ −৩ ১



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই