মেইন ম্যেনু

‘মৃতরা’ ফিরছে, বিপাকে হেফাজত

জানাজা ও জেয়াফতের ১৯ মাস পর চট্টগ্রামের মাজার থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ‘মৃত’ হেফাজতকর্মী আল ফারুককে। সোহেল নামে এক হেফাজতকর্মী নিহত হয়েছে দাবি করা হলেও তাকে পুলিশ খুঁজে পেয়েছে চাঁদপুর উজানী মাদ্রাসায়! নিহতের তালিকায় থাকা লোকমানকে পাওয়া গেছে নারায়ণগঞ্জ কারাগারে। আরেক ‘নিহত’ জাহিদুল ইসলাম সৌরভের দাবি ঢাকায় শাপলা চত্বরের সমাবেশেই ছিলেন না তিনি। গত রমজানে বান্দরবানে ফিরে এসেছে হেফাজতের আরও দুই ‘নিখোঁজ’ কর্মী। এভাবে ‘নিখোঁজ’ ও ‘মৃত’ কর্মীরা একের পর এক ফিরে আসায় বিপাকে পড়েছে আলোচিত সংগঠন হেফাজতে ইসলাম। গোয়েন্দারা বলছেন, নিখোঁজ ও মৃত আরও হেফাজতকর্মীর হদিস মিলবে শিগগিরই।

শাপলা চত্বরের সেই অপারেশনের দায়িত্ব পালনকারী কর্মকর্তা চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আবদুল জলিল মণ্ডল সমকালকে বলেন, ‘সেই অপারেশন নিয়ে নানা মিথ্যাচার হয়েছে। কিন্তু সে রাতে পুলিশ কোনো গুলি ছোড়েনি। তথাকথিত নিখোঁজ ও মৃতরা ফিরে আসায় মিথ্যাচারীদের মুখোশ এখন উন্মোচিত হচ্ছে।’ এ প্রসঙ্গে হেফাজতে ইসলামের সাংগঠনিক সম্পাদক আল্লামা আজিজুল হক ইসলামাবাদী বলেন, ‘শাপলা চত্বরের ঘটনার পর প্রাথমিকভাবে আমরা যে তালিকা দিয়েছিলাম তা ছিল অনুমাননির্ভর। সেই তালিকার কেউ ছিল জেলখানায়, কেউ ছিল আত্মগোপনে। তাদের কেউ কেউ ফিরে এলেও নিখোঁজ আছেন অনেকেই। আমাদের ধারণা, এ পর্যন্ত ১০-১২ জন নিখোঁজ ও মৃত হিসেবে তালিকাভুক্ত হেফাজতকর্মী ফিরে এসেছেন।’

যারা ফিরেছেন
চট্টগ্রামে হেফাজতের নিখোঁজ কর্মীরা ফিরতে শুরু করেন গত রমজানে। এ সময় বান্দরবানের লামা থেকে শাপলা চত্বরের সমাবেশে গিয়ে নিখোঁজ দুই কর্মী ফিরে আসেন। বিষয়টি হেফাজতের উচ্চ পর্যায়কেও জানানো হয়। তবে তাদের পরিচয় জানাতে অস্বীকার করেছেন হেফাজতের সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক আল্লামা আজিজুল হক ইসলামাবাদী। তিনি বলেন, ‘রমজানে আমাদের দুই কর্মী ফিরে আসেন। নিরাপত্তার স্বার্থে আমরা তাদের পরিচয় প্রকাশ করিনি। এরপর ধাপে ধাপে আরও ১০-১২ হেফাজতকর্মী ফিরে এসেছেন।’

বিপাকে হেফাজত
মৃত দাবি করা হেফাজতকর্মী আল ফারুক ফিরে আসায় ফের ইমেজ সংকট পড়েছে হেফাজতে ইসলাম। ‘হাজার হাজার নিহতের’ মধ্যে কেউ কেউ ফিরে আসায় কিছুটা বিব্রতও তারা। এ কারণে প্রথমে হাজার হাজার, পরে শত শত নিহত হওয়ার দাবি করলেও এখন তার কোনো সংখ্যা জানাতেই নারাজ সংগঠনটি। গতকাল এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে হেফাজত নেতারা সঠিক সংখ্যা জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

অন্য নিখোঁজদেরও খুঁজছে গোয়েন্দারা
আল ফারুক ফিরে আসায় নিখোঁজ অন্য হেফাজতকর্মীদের ব্যাপারেও কর্মপরিকল্পনা ঠিক করেছে চট্টগ্রাম নগর গোয়েন্দা পুলিশ। ‘নিখোঁজ ও মৃত’ হেফাজতকর্মীদের খুঁজতে ইতিমধ্যে কাজ শুরু করেছে তারা। সদ্য ফিরে আসা আল ফারুকের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য যাচাই-বাছাই করছেন গোয়েন্দারা। ফারুকের সঙ্গে হেফাজতের কোনো নেতাকর্মীর যোগাযোগ ছিল কি-না খতিয়ে দেখা হচ্ছে। নগর গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা বলেন, ‘ফারুকের বাবা-মার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তাকে উদ্ধার করা হয়েছে। এভাবে নিখোঁজ অন্য হেজাজতকর্মীদের উদ্ধারেও সহযোগিতা করবে পুলিশ।’






মন্তব্য চালু নেই