মেইন ম্যেনু

বিশ্বকাপই খেলা হচ্ছে না কুকের

কী দুর্ভাগ্য ইংলিশ ক্রিকেটার অ্যালিস্টার কুকের। ওয়ানডে নেতৃত্ব থেকে শুধু সরিয়ে দেওয়াই নয়, বিশ্বকাপ থেকেও ছাঁটাই করে ফেলা হয়েছে তাকে।

দীর্ঘ দিন ক্রিকেট খেললেও, বিশ্বকাপের ভাগ্যের সিকে ছেঁড়েনি এখনও তার। না ২০০৭, না ২০১১। প্রত্যেকবারই তাকে বাদ দেওয়া হয়েছে ওয়ানডের জন্য যোগ্য নয় বলে। কিন্তু এবার এসে কুক তো নিশ্চিত ছিলেন, অধিনায়ক হিসেবেই তিনি যাচ্ছেন অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে।

কিন্তু কী দুর্ভাগ্য, শ্রীলংকার কাছে ৫-২ ব্যবধানে ওয়ানডে সিরিজ হারের পর আর তাকে দলেই রাখা হলো না। নেতৃত্ব থেকে তো বাদই দিয়ে দিছে ইংলিশ অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড।
বিশ্বকাপ শুরু হতে এখন দু’মাসেরও কম সময় বাকি। তার আগে দলের দায়িত্ব তুলে দেওয়া হল নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান ইয়ন মর্গ্যানের ওপর। শুক্রবার অনানুষ্ঠানিক হলেও, শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্বকাপের জন্য ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করে দিয়েছে ইসিবি। সেখানেই দেখা গেল কুক পুরো দল থেকেই ছাঁটাই।

ইংল্যান্ডের প্রধান নির্বাচক জেমস হোয়াইটেকার ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করেন। কুককে ছাঁটাই করাতে সবচেয়ে বেশি উপকার হয়েছে তরুন ক্রিকেটার গ্যালি ব্যালেন্সের। তবে শুধু কুকই নন, বেন স্টোক এবং হ্যারি গার্নিকেও দল থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।

২৯ বছর বয়সী কুক ২০১১ সালে ওয়ানডে দলের দায়িত্ব পেয়েছিলেন। টেস্টে নজর কাড়লেও একদিনের ক্রিকেটে ব্যাট হাতে সময়টা ভালো যাচ্ছিল না তার। শেষ ২০টি ওয়ানডেতে কুক মাত্র ২৭.৫২ গড়ে রান পেয়েছেন। শ্রীলংকার কাছে ৫-২ ব্যবধানে সিরিজ হারের পর কুক জানিয়েছিলেন, তিনি সরে দাঁড়াবেন না। তবে নির্বাচকরাই তাকে সরিয়ে দিয়েছেন।

আয়ারল্যান্ডের হয়ে ক্যারিয়ার শুরু করা মর্গ্যান ইংল্যান্ডের হয়ে ১০৭টি ওয়ানডে খেলেছেন। ২৮ বছর বয়সী এই বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যানেরও সাম্প্রতিক ফর্ম ভালো নয়। গত ২৩ ম্যাচে তিনি মাত্র ২৫.৪৫ গড়ে রান পেয়েছেন।

ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ দল
ইয়ন মর্গ্যান (অধিনায়ক), মঈন আলি, জেমস এন্ডারসন, গ্যারি ব্যালেন্স, ইয়ান বেল, রবি বোপারা, স্টুয়ার্ট ব্রড, জস বাটলার, স্টিভেন ফিন, আলেক্স হেলস, ক্রিস জর্ডান, জো রুট, জেমস টেলর, জেমস ট্রেডওয়েল, ক্রিস ওকস।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই