মেইন ম্যেনু

বিএনপি খালি কলস : আমু

বিএনপিকে খালি কলস আখ্যায়িত করে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, ‘স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি জনবিচ্ছিন্ন হয়ে এখন পাগলের প্রলাপ বকছে। কথায় আছে খালি কলস বাজে বেশী।’

বৃহস্পতিবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের উদ্যোগে বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও চেক প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

আমির হোসেন আমু বলেন, ‘জিয়াউর রহমান ১৩ হাজার যুদ্ধাপরাধী এবং ৫৪ জন যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসির দণ্ড মওকুফ করেছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী শক্তিকে ক্ষমতায় বসানো হয়েছিল। আর তার স্ত্রী রাজাকারদের নিয়ে সরকার গঠন করলে অবাক হওয়ার কিছু নেই।’

তিনি বলেন, ‘১৫ আগস্টের পর অনেক মুক্তিযোদ্ধা ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’ বলতে ভুলে গিয়েছিলেন। জিয়াউর রহমান মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ভাঙার ষড়যন্ত্র করেছিলেন। কারণ মুক্তিযোদ্ধারা ঐক্যবদ্ধ থাকলে তিনি স্বাধীনতা বিরোধীদের নিয়ে ক্ষমতায় থাকতে পারতেন না। সাম্প্রদায়িক রাজনীতিরও সুযোগ করে দিয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। যার ফলে গোলাম আজম দেশে ফিরে রাজনীতি করতে পেরেছেন।’

শিল্পমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়া ও তার ছেলে তারেক রহমান স্বাধীনতা বিরোধীদের নিয়ে রাজনীতি করছেন। তারা ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বানচাল করার ষড়যন্ত্র করেছিলেন। তাদের আন্দোলনের নাম শুনলে দেশের মানুষ এখন ভয় পায়। কারণ তারা আন্দোলনের নামে ঘুমন্ত মানুষকে আগুনে পুড়িয়ে মারে, শত শত মানুষকে পেট্রোল বোমা দিয়ে হত্যা করে, রেললাইন উপড়ে ফেলে মানুষ হত্যা করে। হাজার হাজার গাছ কেটে পরিবেশ নষ্ট করে।’

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের দাবির সঙ্গে একমত পোষণ করে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও সারাদেশে শিল্পায়নে আগ্রহী। বর্তমানে দেশে জাপান, চীনসহ বিভিন্ন দেশ বিনিয়োগ করতে আগ্রহী। কয়েকদিন আগেও থাইল্যান্ড থেকে একটি টিম এসেছিল।’

সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নের ফিরিস্তি তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান সরকার শিক্ষিতের হার ৭১ শতাংশে উন্নীত করেছে। শিশু ও মাতৃ মৃত্যুর হার কমিয়েছে। কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে চিকিৎসা সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছে। সাড়ে ৩৬ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করা হয়েছে। ১ জানুয়ারি নতুন পাঠ্যবই শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেয়া হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনা যে শিক্ষানীতি করেছেন ওই সময় বিরোধীরা উস্কানি দিয়েছিল যে, শেখ হাসিনা কওমী মাদরাসাগুলো বন্ধ করে দিবেন। কিন্তু সরকার সেটা ভুল প্রমাণিত করেছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ নিয়েও ভুল ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছিল। আজকে ইউনিয়ন পরিষদে বসেই ডিজিটাল বাংলাদেশের সেবা উপভোগ করতে পারছে। আওয়ামী লীগ ১৩ লাখ টন মজুদ রেখে গেলেও চারদলীয় জোট সরকার খাদ্য ঘাটতি রেখে গিয়েছিল। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর দেশ আবারও খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে।’

জেলা পরিষদের প্রশাসক আবদুল হাইয়ের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৫ (শহর-বন্দর) আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু, সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট হোসনে আরা বাবলী, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মোহাম্মদ আলী, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই