মেইন ম্যেনু

বাংলাদেশে বিয়ের বয়স কমানো হবে ভুল

বিয়ের বয়স কমানো বাংলাদেশের একটি ভুল সিদ্ধান্ত হবে বলে মন্তব্য করেছে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)। এক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক ন্যূনতম বয়সসীমা মেনে চলা উচিত বলে মনে করে সংস্থাটি। সম্প্রতি বিয়ের বয়স পুনঃনির্ধারনে ন্যূনতম বয়সসীমা সংক্রান্ত আইনটি সংশোধন করে ১৮ থেকে ১৬ বছরে কমিয়ে আনার যে পরিকল্পনা মন্ত্রিপরিষদ নিয়েছে, তারই প্রেক্ষিতে এই মন্তব্য করল এইচআরডব্লিউ।

গত জুলাইয়ে লন্ডনে আন্তর্জাতিক গার্ল সামিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, বাংলাদেশে বাল্যবিবাহ ক্রমান্বয়ে কমিয়ে আনা হবে এবং একটা পর্যায়ে এটি শূন্যের কোঠায় আনা হবে। সেসময় তিনি প্রতীজ্ঞাবদ্ধ হন, ২০২১ সালের মাঝে বাংলাদেশে ১৫ বছরের নিচে মেয়েদের বিয়ে বন্ধ করা হবে। এছাড়া ১৫ থেকে ১৮ বছরের মাঝে বিয়ের হার এক তৃতীয়াংশে কমিয়ে আনা হবে।

প্রধানমন্ত্রী সেসময় এও জানান, বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের মাঝে সরকার জাতীয়ভাবে একটি কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করবে, যেখানে সামাজিক ও জাতীয়ভাবে জনসাধারণের স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহণে একধরণের প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হবে।

এরপরই সরকার বাংলাদেশে বিয়ের ন্যূনতম বয়স ১৮ থেকে কমিয়ে ১৬ তে নিয়ে আসার পরিকল্পনা নেয়। এবিষয়ে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের নারী অধিকার শাখার পরিচালক লিয়েসল জার্নতোলজ বলেন, এধরণের পদক্ষেপ বাল্যবিবাহ রোধে নিঃসন্দেহে একটি ভুল পদক্ষেপ।

ইউনিসেফের হিসাবে, বাংলাদেশ বাল্যবিবাহের সংখ্যার দিক থেকে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ। প্রথম স্থনে আছে নাইজেরিয়া। এপ্রসঙ্গে লিয়েসল জার্নতোলজ বলেন, বাংলাদেশে এমনিতেই বাল্যবিবাহের হার খুব বেশি। তারওপর বিয়ের বয়স কমিয়ে আনলে আসলে বাল্যবিবাহকেই পরোক্ষভাবে উষকে দেওয়া হবে।

ইউনিসেফের এক জরীপে জানা যায়, বর্তমানে ২০ থেকে ৪৯ বছরের মাঝে বিবাহিত নারীদের ৭৪ শতাংশই ১৮ বছর বয়সের আগে বিয়ে হয়েছে, যেখানে দেশে বর্তমানে আইনেই আছে, মেয়েদের ক্ষেত্রে ১৮ বছরের নিচে বিয়ে দেওয়া সম্পূর্ণ নিষেধ এবং তা বাল্যবিবাহ।

এদিকে আন্তর্জাতিক লিঙ্গবৈষম্য আইনেও বলা হয়েছে, নারী ও পুরুষের বিয়ের বয়স হতে হবে সমান এবং তা ন্যূনতম ১৮ বছর।

১৯৯০ সালে বাংলাদেশ শিশু অধিকার কনভেনশনকে স্বাগত জানিয়ে অনুমোধন দেয়। সেই কনভেনশন অনুযায়ী শিশুর সংজ্ঞা নির্ধারিত হয়- যাদের বয়স ১৮ বছরের কম, তারা সকলেই শিশু বলে গণ্য হবে।

‘বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন-২০১৪’ পাস করার আগে আরো কিছু বিষয় বিবেচনার সুপারিশ করেছে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ। এতে খসড়া আইনে বিবাহকারী, বিয়ে পরিচালনাকারী ও অভিভাবকের জন্য একই শাস্তির সুপারিশ করা হয়েছে। এর বদলে শাস্তির বিধি এমন হওয়া উচিৎ যাতে এর পেছনের মূল ব্যক্তিদের শাস্তির আওতায় এনে বাল্য বিয়ে রোধ করা যায়।

বিয়ের ক্ষেত্রে উভয়পক্ষের সম্মতির বিষয়টি নিশ্চিত করা, দাম্পত্য ধর্ষণের বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়া, ভিকটিমদের আইনি সুরক্ষা দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা এবং অভিযোগ জানানোর প্রক্রিয়া আরো সহজ করার বিষয়গুলো আইনে অন্তর্ভুক্ত করারও সুপারিশ করেছে এইচআরডব্লিউ।






মন্তব্য চালু নেই