মেইন ম্যেনু

প্রয়োজনে খালেদাকেও গ্রেফতার: নানক

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, “দেশের স্থিতিশীল পরিবেশ ও শান্তি-শৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে প্রয়োজনে খালেদা জিয়াকেও গ্রেফতার করা হবে।”

ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। বুধবার বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কিশোরগঞ্জের জনসভায় দেয়া বক্তব্যের প্রতিবাদে এ সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয়।

খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, “আপনি দুবার প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তাতে কি? আইনে ঊর্ধ্বে কেউ নয়। যে কেউ আইনের ব্যত্যয় ঘটাবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। জনগণের দুর্ভোগ সৃষ্টিকারী কর্মসূচি যারাই দেবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।”

বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার কিশোরগঞ্জে দেয়া বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় সাবেক এ প্রতিমন্ত্রী বলেন, “মানসিক অসুস্থতাকে লুকিয়ে রাখা যায় না। আপনার আচরণ শিরপীড়া, বিকারগ্রস্ত অস্থির যন্ত্রণার পরিচয় বহন করে। নিজের প্রতি যত্মবান হোন। তাহলে প্রচুর অসত্য ভাষণের সুযোগ পাবেন।”

নানক বলেন, “দেশবাসীর কাঙ্খিত উন্নয়ন ও গণতান্ত্রিক অভিযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করার যেকোনো ষড়যন্ত্র জনগণ দৃঢ়তার সঙ্গে মোকাবিলা করবে। সে যেই হোক। জনজীবনে শান্তি, নিরাপত্তা ও অগ্রগতি নিশ্চিত করতে জনগণের ভোটে নির্বাচিত সরকার যেকোনো কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে শৈথিল্য প্রদর্শন করবে না।”

তিনি বলেন, “খালেদা জিয়া কিশোরগঞ্জে যে ভাষণ দিয়েছেন তা অগণতান্ত্রিক, অসংলগ্ন, অপ্রাসঙ্গিক। দেশের মানুষ যখন শান্তিতে আছে, খালেদা জিয়া তখন অশান্তিতে আছেন। তার অশান্তির কারণ হচ্ছে ক্ষমতায় থেকে লুটপাট ও যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা করতে না পারা।”

আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, “বাংলাদেশের মীর জাফর জিয়ার স্ত্রী ঢাল-তলোয়ার নিয়ে প্রস্তুত থাকতে বলেছেন। বাংলাদেশের গণতন্ত্রপ্রিয় জনগণ সম্মিলিতভাবে এ অগণতান্ত্রিক আস্ফালণকে দুরাশায় পরিণত করবে।”

সংবাদ সম্মেলন উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দফতর সম্পাদক আব্দুল মান্নান, ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই