মেইন ম্যেনু

প্রেম ও দাম্পত্যে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে ফেসবুকের যে ৪ অভ্যাস…

সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যম ফেসবুক কখনো কখনো মানুষের জীবনই যেন নিয়ন্ত্রণ করে। সুখ-দুঃখ-ঝামেলার কারণও হয় এই ফেসবুক। অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে কেউ কারো কাছ থেকে কিছু জিজ্ঞেস করে জেনে নিতে হয় না, ফেসবুকেই পাওয়া যায় প্রতিমুহূর্তের আপডেট। আর একারণে ব্রেক আপ, ডিভোর্স বেড়েই চলেছে। অন্তত এ বিষয়ক গবেষণা এমন তথ্যই দিচ্ছে। ফেসবুকে এমন কিছু কাজ আমরা করি, যা আমাদের ভালোবাসার মানুষকে দূরে সরিয়ে দেয়। রিলেশনশিপ ইভেন্ট অর্গানাইজার ওয়ার্ল্ড অব আমোর চিহ্নিত করেছে চারটি বিশেষ ফেসবুকীয় বদভ্যাসের কথা, যা আপনার সঙ্গে আপনার সঙ্গী বা সঙ্গিনী দূরত্ব তৈরি করতে পারে। জেনে নিন সেই অভ্যাসগুলোর কথা—

– অনেকেই ফেসবুকে সঙ্গীর উপর ওপর নজর রাখে। এটা আপনার সঙ্গী হয়তো পছন্দ করবেন না।

– সঙ্গীর প্রতি রাগ, অভিমান যা-ই হোক না কেন, সেই আবেগ ফেসবুকে প্রকাশ করবেন না। আপনার বান্ধবী হয়তো আপনাকে ছাড়াই বন্ধুদের সঙ্গে রেস্তোরাঁয় খেতে গেছেন, আপনি তাতে ভয়ানক ক্ষুব্ধ। কিন্তু বান্ধবী নিজের সেই আউটিং-এর ছবি ফেসবুকে পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গে আপনি যদি নিচের কমেন্ট বক্সে সেই রাগ উগরে দেন, তাহলে তার পক্ষে সেটা বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়াবে। নিজেদের সমস্যা ব্যক্তিগত স্তরেই মিটিয়ে নেওয়াই কি শোভন নয়?

-নিজের সাবেক প্রেমিক বা প্রেমিকার সঙ্গে ফেসবুকে ফ্লার্ট করা বন্ধ করুন। নিজের পুরনো বন্ধু কিংবা ভালোবাসার মানুষদের সঙ্গে পুনর্মিলনের চমৎকার সুযোগ ফেসবুক তৈরি করে দেয় ঠিকই, কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে, আপনি পূর্ণমাত্রায় সেই সুযোগের সদ্ব্যবহার করবেন। নিজের এক্স-গার্লফ্রেন্ডের ছবিতে ‘সুন্দর লাগছে’ জাতীয় কমেন্ট চলতেই পারে, কিন্তু আপনি যদি লেখেন ‘তোমার হাসিটা এখনও আগের মতোই মিষ্টি রয়েছে’, তাহলে সেটা বাড়াবাড়ি।

– সঙ্গীর কাছে সত্য বলুন। কারণ ফেসবুকে আপনার মিথ্যা ধরা পড়ে যাওয়ার আশঙ্কা অত্যন্ত বেশি। যেমন ধরুন, প্রেমিকাকে বললেন, আপনি ভয়ানক ব্যস্ত, আর তারপর বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডার ছবি পোস্ট করে দিলেন ফেসবুকে, তাহলে কিন্তু গুরুতর বিপদ অবশ্যম্ভাবী। সূত্র: এবেলা।






মন্তব্য চালু নেই