মেইন ম্যেনু

পরীক্ষার উত্তরপত্রে প্রেমপত্র-হিন্দি গান!

আইন কলেজের পরীক্ষা। প্রশ্ন-উত্তর আইন-কানুন সংক্রান্ত হবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু উত্তরপত্র দেখতে গিয়ে নিরীক্ষকের চোখ কপালে ওঠার যোগাড়। উত্তরপত্র ভরা প্রেমপত্র আর কিশোর কুমারের হিন্দি গানে। কেউ লিখেছেন গল্প।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বালুরঘাট আইন কলেজে দ্বিতীয় সেমিস্টারের ১০ শিক্ষার্থী এমন কাণ্ড ঘটিয়েছে। খবর আনন্দবাজার’র।

এই ১০ পরীক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন বাতিলের সুপারিশ করেছে গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক কমিটি। ১৮ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক্সিকিউটিভ কাউন্সিলের সভায় ওই সুপারিশ তোলা হবে।

সংশ্লিষ্ট পরীক্ষার্থীদের ডেকে কোনো কৈফিয়ত তলব করা হবে না জানিয়ে কমিটি জানায়, ওই পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষাপত্রে কী কী লিখেছে তার প্রমাণ রয়েছে। তবে এক্সিকিউটিভ কাউন্সিলের সদস্যরা যদি ওই পরীক্ষার্থীদের ডেকে বক্তব্য শুনতে চান, তা শুনতে পারেন।

জানুয়ারি মাসের শেষদিকে বালুরঘাট আইন কলেজের দ্বিতীয় ও চতুর্থ সেমিস্টারের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়।

গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, দ্বিতীয় সেমিস্টারে ১৮২ ছাত্রছাত্রী পরীক্ষা দিয়েছিল। তাদের মধ্যে সব বিষয়ে পাস করেছে মাত্র ২৫ জন। আর ৪৪ জন একটি বিষয়ে ও ২২ জন দুটি বিষয়ে ফেল করে যোগ্যতামান বজায় রাখে। বাকি ৯১ জনই পরীক্ষায় অকৃতকার্য হন।

আর চতুর্থ সেমিস্টারে ৭২ জন পরীক্ষা দিয়েছিলেন। মাত্র একজনই সব বিষয়ে পাস করে। ৩৬ জন কোনো রকম যোগ্যতামান বজায় রাখে।

সবচেয়ে চমকপ্রদ তথ্য হলো- দ্বিতীয় সেমিস্টারের ১০ পরীক্ষার্থীর চারজন পরীক্ষার খাতার ছত্রে ছত্রে প্রেমপত্র লিখে এসেছে। দুজন প্রেমপত্রের পাশাপাশি কিশোর কুমারের গাওয়া হিন্দি গানের কলিও লিখেছে।

এছাড়া দুজন আবার পরীক্ষার দিনের ঘটনাবলী নিয়ে গল্প লিখেছে। কিছু আপত্তিকর ভাষাও কয়েকজন ব্যবহার করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

এমন কাণ্ড ঘটানোর পরও পাস করানোর দাবিতে গত ২৭ জানুয়ারি ওই পরীক্ষার্থীরাই বালুরঘাট আইন কলেজে বিক্ষোভ করেছে। এ নিয়ে বিভিন্ন মহলে নিন্দার ঝড় ওঠে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষাসমূহের নিয়ন্ত্রক সনাতন দাস বলেন, ‘ ওই ১০ জন পরীক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন বাতিলের জন্য আমরা এক্সিকিউটিভ কাউন্সিলের কাছে সুপারিশ করছি। সেখানে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’






মন্তব্য চালু নেই