মেইন ম্যেনু

নিজামী-সাঈদীকে দিয়ে জানাজার পক্ষে নয় সরকার

দলীয় নেতা মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী ও মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে দিয়ে গোলাম আযমের নামাজে জানাজা পড়ানো হচ্ছে না।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম তেমন আভাস দিয়েছেন।

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে আজীবন দণ্ডপ্রাপ্ত গোলাম আযম বৃহস্পতিবার রাতে মারা গেছেন। মৃত্যুর পর থেকেই দাবি ওঠেছে নিজামী অথবা সাঈদীকে দিয়ে তার জানাজা পড়ানোর।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, গোলাম আযমের জানাজা মতিউর রহমান নিজামী অথবা মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে দিয়ে পড়ানো একেবারেই অযৌক্তিক। কারণ তারা তার আত্মীয় বা পরিবারের কেউ নন।

শুক্রবার দুপুরে ধানমন্ডিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে ১৪ দলের বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন নাসিম।

গোলাম আযম মারা যাওয়ার বিষয়ে আওয়ামী লীগের প্রতিক্রিয়া কি জানতে চাইলে তিনি বলেন, একজন মানুষ বার্ধক্যজনিত কারণে মারা গেছেন। এটার কোনো প্রতিক্রিয়া নেই।

বৃহস্পতিবার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বক্তব্যের সমালোচনা করে নাসিম বলেন, তিনি বরাবরই মিথ্যাচার করছেন। যখন প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘের সাধারণ সভায় বক্তব্য দেন, জাপানের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে আসেন, ইতালি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানান- সেগুলো কি ফটোসেশন?

নাসিম বলেন, খালেদা জিয়া মিথ্যাচারের সীমা ছাড়িয়ে গেছেন। তার দীনতা ও হীনমন্যতার জন্য করুণা হয়। খালেদা জিয়া এসব কথা বলে জনগণকে অপমান করছেন। আসলে বিএনপির জন্ম সামরিক স্বৈরাচারের মধ্যদিয়ে। তাই গণতন্ত্র কি তারা জানে না। রাজনীতিতে পরাজিত হওয়ার হতাশা ও বেদনা থেকে তিনি কি বলতে চান তা বুঝেন না। তিনি আওয়ামী লীগের কাছে রাজনীতিতে পরাজিত হয়েছেন। যে যত কথাই বলুক, ২০১৯ সালের আগে কোনো নির্বাচন নয়।

রোববারে ডাকা হরতাল সস্পর্কে তিনি বলেন, তথাকথিত ইসলামি দল হরতাল ডেকেছে। লতিফ সিদ্দিকীকে মন্ত্রিসভা থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য থেকেও সরিয়ে দেয়া হয়েছে তাকে। আজ বিকেলে আওয়ামী লীগের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক রয়েছে। সেখানে তার বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

খালেদা জিয়ার প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, রোববার একজন নেত্রীর আদালতে মামলার হাজিরা দেয়ার কথা। আদালতে হাজিরা না দেয়ার উদ্যেশেই এ হরতাল। তিনি বলেন, নৈরাজ্যকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। অযৌক্তিক এ হরতালের জন্য জনগণকে সজাগ থাকার আহবান জানান তিনি।

আগামী ২৫ নভেম্বর সিলেটে ১৪ দল একটি সমাবেশ করবে বলেও জানিয়েছেন মোহাম্মদ নাসিম।

সরকার পতন ছাড়া ঘরে ফিরবেন না- বেগম খালেদা জিয়ার এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে নাসিম বলেন, অচল দলকে সক্রিয় করার জন্যই খালেদা জিয়া এ কথা বলেছেন । তিনি কি বলেন তাতে কিছু যায় আসে না। তিনি যা বলেন, তা হতাশা থেকে বলেন।

কমিউনিস্ট কেন্দ্রের আহ্বায়ক ডা. ওয়াজেদুল ইসললাম খান, ওয়ার্কার্স পার্টি সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা, পলিটব্যুরোর সদস্য আনিসুর রহমান মল্লিক. গণতান্ত্রিক পার্টির সভাপতি নূরুর রহমান সেলিম, বাংলাদেশের সামাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) আহ্বায়ক রেজাউর রশিদ খান, আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আবদুল মান্নান খান, আব্দুস সোবহান গোলাপ, উপ-দপ্তর সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই