মেইন ম্যেনু

দুর্নীতিকে বৈধতা দিচ্ছে সরকার: খালেদা

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, “বর্তমান সরকার সব ক্ষেত্রে দুর্নীতিগ্রস্ত। তারা দুর্নীতিকে বৈধতা দিচ্ছে। অর্থমন্ত্রী নিজেই এ কথা স্বীকার করেছেন।” দুর্নীতি দমন কমিশনকে তিনি ‘দুর্নীতি কমিশন’ বলেও মন্তব্য করেন।

বুধবার বিকেলে কিশোরগঞ্জের সরকারি গুরুদয়াল মাঠে আয়োজিত ২০ দলীয় জোটের জনসভায় খালেদা জিয়া এসব কথা বলেন। বিকেল চারটা ২০ মিনিটে খালেদা জিয়ার বক্তব্য শুরু হয়।

বক্তব্যের শুরুতে খালেদা জিয়া বিশাল জনস্রোতকে ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানান। জনসভায় কিশোরগঞ্জের জনসাধারণের স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহণে তিনি আপ্লুত বলেও জানান।

খালেদা জিয়া বলেন, “দেশে কোনো নির্বাচিত সরকার নেই। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রে মানুষ ছিল না, কুকুর বসা ছিল। কর্মকর্তারা বসে বসে ঘুমিয়েছে। তারপরও তারা কিভাবে নির্বাচিত দাবি করে। এই সংসদ অবৈধ।” অবৈধ সরকারের ক্ষমতায় থাকার কোনো অধিকার নেই বলেও মন্তব্য করেন খালেদা।

কিশোরগঞ্জে বড় বড় অনেক নেতা রয়েছেন তারপরও রাস্তা-ঘাটসহ কোনো উন্নতি হয়নি দাবি করে খালেদা জিয়া বলেন, আমাদের সময়ে আমরা কিশোরগঞ্জে ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। কিশোরগঞ্জের সন্তান ওসমান ফারুক আমাদের শিক্ষামন্ত্রী ছিলেন। তিনি ব্যাপক উন্নতি করেছেন।

সারা দেশেও কোনো উন্নয়ন হয়নি দাবি করে খালেদা জিয়া তরুণদের খোঁজখবর নেয়ার আহ্বান জানান।

বিশ্বজিতের প্রসঙ্গ টেনে এই সরকারকে ‘খুনি’ আখ্যায়িত করে খালেদা জিয়া বলেন, পুরো দেশে তারা গুম-খুনের রাজত্ব কায়েম করেছে। সব অপকর্মের সঙ্গে আওয়ামী লীগ জড়িত বলেও দাবি করেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী।

খালেদা বলেন, “দেশের মানুষ দুরাবস্থায় থাকলেও আওয়ামী লীগের অবস্থা ভালো। তারা সর্বত্রই লুটের রাজত্ব কায়েম করেছে।” তারা ব্যাংক থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করেছে বলেও অভিযোগ করেন খালেদা। এ সময় তিনি বিভিন্ন সংবাদপত্রের কাটিং প্রদর্শন করেন।






মন্তব্য চালু নেই