মেইন ম্যেনু

দুদক এখন ‘সার্টিফিকেট বিতরণ কেন্দ্র’

‘দুদক’ এখন ক্ষমতাসীন দুর্নীতিবাজ মন্ত্রী-নেতাদের দুর্নীতি থেকে অব্যাহতির সনদপত্র দেয়ার একটি ‘সার্টিফিকেট বিতরণ কেন্দ্রে’ পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
তিনি বলেন, ‘হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাটকারী মন্ত্রী-এমপিদের এই মেরুদণ্ডহীন-পদলেহনকারী সুবিধাভোগী দুদক একের পর এক দুর্নীতিমুক্ত ঘোষণা করে সার্টিফিকেট দিচ্ছে। অপরদিকে দুর্নীতি দমনের নামে এই প্রতিষ্ঠানটি এসব দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদমুখর বিএনপি নেতাদের নামে মিথ্যা-বানোয়াট অভিযোগ দাঁড় করিয়ে তাদের নামে মামলা দায়ের করে রাজনৈতিকভাবে হয়রানী ও জনসম্মুখে হেয় প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টায় লিপ্ত।’
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এক বিবৃতিতে তিনি এ কথা বলেন। বিএনপির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানির বিরুদ্ধে দুদক মামলা করায় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতিটি পাঠান।
মির্জা আলমগীর বলেন, ‘বর্তমান ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতাসীন অবৈধ সরকার বিশ্বদুর্নীতিবাজ হিসেবে খ্যাতি লাভ করেছে সমগ্র বিশ্বে। এই অবৈধ সরকারের মন্ত্রী-এমপিরা ২০০৮ সালে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসীন হওয়ার পর থেকেই অব্যাহতভাবে জনগণের লক্ষ-কোটি টাকা আত্মসাত করে চলেছে। শুধু শেয়ার বাজার থেকেই প্রায় এক লক্ষ কোটি টাকা লুট করেছে। পদ্মা সেতু থেকে শুরু করে, হলমার্ক, ডেসটিনি, ব্যাংক সহ অধিকাংশ সরকারি আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে শত শত নয়- হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাট করে নিয়ে গেছে অবৈধ সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের নেতা এবং মন্ত্রী-এমপিরা। তাদের রাজনৈতিক দর্শনই হচ্ছে সীমাহীন দুর্নীতি, লুটপাট।’
তিনি বলেন, ‘হলমার্কের প্রায় চার হাজার কোটি টাকা লোপাটের পরও খোদ অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন- এটা তেমন কিছু না। অপরদিকে বিএনপি নেতাদের নামে মামলা দায়ের করে রাজনৈতিকভাবে হয়রানী ও জনসম্মুখে হেয় প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টায় লিপ্ত দুদক। এভাবে বিরোধী দলীয় নেতাদের নামে মামলার খড়গ ঝুলিয়ে, ভয় দেখিয়ে ক্ষমতাসীনরা তাদের অপকর্ম নির্বিঘ্নে চালিয়ে যাওয়ার কুমতলবে বিভোর হয়ে পড়েছে। কিন্তু এভাবে তাদের শেষ রক্ষা হবে না। দুনিয়ার তাবৎ অবৈধ, দুর্নীতিবাজ স্বৈরশাসকরা এভাবেই তাদের অপকর্ম চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছে। তবে কোনো দুর্নীতিবাজ স্বৈরশাসকরা এইভাবে ক্ষমতায় টিকিয়ে থাকতে পারেনি- বর্তমান এই আওয়ামী শাষকগোষ্ঠীরও শেষ রক্ষা হবে না।’
তিনি আরো বলেন, ‘বিএনপি তথা ২০ দলীয় জোট জনগণকে সাথে নিয়ে দুর্বার গণআন্দোলনের মাধ্যমে দুর্নীতিবাজ অগণতান্ত্রিক সরকারকে ক্ষমতা থেকে বিদায় করে সব দলের অংশগ্রহণে গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা করবে এবং জনগণের কষ্টার্জিত অর্থ লোপাটকারী মহাজোটের পরীক্ষিত দুর্নীতিবাজদের পাকড়াও করে বিচারের আওতায় নিয়ে আসবে।’



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই