মেইন ম্যেনু

দুই ঘণ্টা ধরে অভিনেত্রীকে গাড়িতে ধর্ষণ

ভারতে জনপ্রিয় এক অভিনেত্রীকে অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এঘটনায় তার গাড়ির চালক ও সন্দেহভাজন আরো দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পুলিশ ওই অভিনেত্রীর নাম প্রকাশ করেনি।

শুক্রবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) রাতে ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় কেরালা রাজ্যে এ অপহরণ ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

ভারতীয় সিনেমার ওই অভিনেত্রী অভিযোগ করেছেন তিনজন লোক তার গাড়ির ভেতরে ঢুকে তাকে ধর্ষণ করেছে। তিনি বলেন, ধর্ষণকারীরা শুক্রবার রাতে তার গাড়ির পিছু নিয়েছিলো। তিনি তখন একটি সিনেমার ডাবিং-এ অংশ নিতে যাচ্ছিলেন।

পুলিশ বলছে, তার গাড়ির চালক ও সন্দেহভাজন আরো দুই ব্যক্তিকে পুলিশ রোববার রাতে আটক করেছে। তারা আরো তিনজনকে খুঁজছে। তবে প্রধান অভিযুক্ত, তার সাবেক একজন ড্রাইভার এখনও পলাতক।

অভিনেত্রী বলেছেন, এই অপহরণ ও ধর্ষণের ঘটনা চলেছে দুই ঘণ্টা ধরে। একইসাথে তার অশোভন ছবি সোশাল মিডিয়াতে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকিও দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

এই ঘটনায় পুলিশ ধর্ষণ, অপহরণ এবং অপরাধের ষড়যন্ত্রের মামলা করেছে। এই খবরটি ছড়িয়ে পড়ার পর ভারতে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। দক্ষিণ ভারতীয় সিনেমার লোকেরা এর তীব্র নিন্দায় সোচ্চার হয়েছেন।

বিবিসি হিন্দিকে পরিচালক লাল বলেছেন, “এটি জঘন্য কাজ। কোচিনের মতো একটি শহরে এরকম ঘটনা ঘটেছে এটা আমি বিশ্বাস করতে পারছি না। এই শহরে বহু নারী রাত করেই কাজ থেকে বাড়িতে ফেরেন।”

প্রখ্যাত অভিনেতা মোহনলাল তার ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, মোমবাতি জ্বালিয়ে প্রতিবাদ করা বন্ধ করার সময় এসে গেছে। এখন আইনের প্রয়োগের ব্যাপারে আমাদের জোরালো ভূমিকা নিতে হবে যাতে আর কেউ এধরনের কাজ করার সাহস না পায়। খুব দ্রুত এর বিচার হওয়া দরকার।

গত কয়েক বছরে ভারতে বেশ কয়েকটি ধর্ষণের ঘটনা সারাদেশে তোলপাড় সৃষ্টি করেছিলো। বিশেষ করে ২০১২ সালে রাজধানী দিল্লিতে চলন্ত বাসে মেডিকেলের এক ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় কর্তৃপক্ষের ওপর প্রচণ্ড চাপ তৈরি হয়েছিলো। তার জেরে ধর্ষণ প্রতিরোধে নতুন করে কঠোর একটি আইন প্রণয়ন করা হয়।

তারপরেও সারাদেশে নারীর ওপর এধরনের সহিংসতা সারা ভারতেই অব্যাহত রয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই