মেইন ম্যেনু

ড. কামালকে বেয়াদব বললেন মায়া

৫ জানুয়ারি নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ১৫৪ জন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় হাইকোর্টে রিট করা রায় নিয়ে মন্তব্য করায় গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেনকে বেয়াদব বললেন ত্রাণ ও দূর্যোগ ব্যাবস্থাপনা মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া।

রোববার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের প্রধান কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর আয়োজিত ২৩ জুন দলের ৬৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে এক বর্ধিত সভায় তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘হাইকোর্টে গেছিলেন। হাইকোর্ট একখান থাপ্পর দিয়ে দিছে। তাতেও লজ্জা হয়নি। এখন আবার বলেন হাইকোর্ট পক্ষে না বললেও জনগণ পক্ষে আছে। কত বড় বেয়াদ্দব হলে এমন কথা বলতে পারেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিএনপির কিছু সিনিয়র নেতা বেগম খালেদা জিয়ার কর্মকাণ্ডে বিরক্ত হয়ে নিষ্ক্রিয় হয়েছেন। এখন তারা আওয়ামী লীগে যোগ দেয়ার জন্য গোপণে যোগাযোগ করছেন। কিন্তু আমরা ভাবছি নেবো কিনা। কারণ দলে এসে যোগ দিয়ে অকাম-কুকাম ঘটাবেন। আর সেই দায় আওযামী লীগের ঘাড়ে আসবে। তবে যদি কোনো পরীক্ষিত নেতা ও মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের হন তাহলে আলোচনা করা যেতে পারে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনে না এসে আম-ছালা দুইটাই গেছে। এখন তিনি রাস্তাঘাটে হেঁটে হেঁটে মিথ্যা কথা বলেন। মিথ্যা কথা বলে দলকে আর কতোদিন টিকিয়ে রাখবেন। তিনি এখন আর সফর সঙ্গীও পান না।’

খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেন, ‘ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শুভেচ্ছা বার্তা নিয়ে আগামী ২৫ জুন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বাংলাদেশে আসছেন। এ সফরের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের অমীমাংসিত বিষয়গুলো মীমাংসা এবং সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হবে।’

বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আন্দোলনের হুমকিতে লাভ হবে না। জনগণ আপনাদের সঙ্গে নেই। জনগণকে কাছে টানার সাংগঠনিক শক্তি আপনার নেই। তাই দলকে আরো সুসংগঠিত ও সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী করে আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নেন।’

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন- দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজী মো. সেলিম, সহ-সভাপতি মুকুল চৌধুরী, শেখ নজরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, প্রচার সম্পাদক আব্দুল হক সবুজ প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই