মেইন ম্যেনু

ঝাড়ু হাতে নিজেই দফতর পরিষ্কার করলেন মন্ত্রী! অস্বস্তিতে অফিসাররা

একা যোগী আদিত্যনাথ নন, চমকে দিতে শুরু করলেন তার মন্ত্রিসভার অন্য সদস্যরাও। নিজ দফতরের অপরিচ্ছন্নতা দেখে বৃহস্পতিবার বেজায় রেগে গেলেন মন্ত্রী উপেন্দ্র তিওয়ারি। ঝাড়ু হাতে নিয়ে নিজেই নেমে পড়লেন সাফাই অভিযানে। স্বয়ং মন্ত্রীকে ঝাড়ু হাতে করিডর পরিষ্কার করতে দেখে বেজায় অস্বস্তিতে পড়লেন দফতরের সরকারী কর্মীরা। খবর এবিপির।

মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়ল এই ঘটনার খবর। মন্ত্রীর এই কাণ্ড দেখে সরকারি দফতর পরিচ্ছন্ন রাখতে কোমর বেঁধে ময়দানে নেমে পড়লেন কর্তারাও। ভারতের উত্তরপ্রদেশ বিধানসভায় যে ঘরটি বরাদ্দ হয়েছে মন্ত্রী উপেন্দ্র তিওয়ারির জন্য, সেই ঘর এবং করিডরের অপরিচ্ছন্নতা দেখে এ দিন অত্যন্ত অসন্তুষ্ট হন মন্ত্রী।

এক হাতে ঝাড়ু আর এক হাতে মপার নিয়ে নিজেই করিডর সাফাই শুরু করেন তিনি। বিপদ বুঝে এক সাফাইকর্মী তড়িঘড়ি গার্বেজ বিন হাতে নিয়ে মেঝে থেকে ময়লা কুড়িয়ে নিতে শুরু করেন। তবে দফতরের অন্য কর্মী এবং কর্মকর্তারা ঘটনার আকস্মিকতায় তখন হতচকিত। মন্ত্রীকে ঘিরে কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায় তাদের।

মন্ত্রী নিজে ঝাড়-পোঁছ করেছেন দফতরে, এই খবর আগুনের মতো ছড়িয়েছে উত্তরপ্রদেশে এবং বাইরেও। তারপর থেকে আরও তটস্থ সরকারি দফতরের কর্মী এবং কর্তারা। উপেন্দ্র তিওয়ারি নিজেই সাফাই অভিযানে নামার পর, তার দফতর তো বটেই অন্যান্য দফতরের কর্তারাও পরিচ্ছন্নতা সুনিশ্চিত করতে কাজ শুরু করে দিয়েছেন বলে খবর।

ভারতের উত্তরপ্রদেশে গত রোববার শপথ নিয়েছে যোগী আদিত্যনাথের মন্ত্রিসভা। সোমবারই তিনি মন্ত্রীদের আরও একটি বিষয়ে শপথ গ্রহণ করিয়েছেন। প্রত্যেক মন্ত্রী বছরে অন্তত ১০০ ঘণ্টা সময় ব্যয় করবেন পরিচ্ছন্নতা অভিযানের জন্য, মন্ত্রীরা শপথ নিয়েছেন এই মর্মে। যোগীর নির্দেশে সরকারি দফতরে পান, পান মশলা, গুটখা খাওয়াও নিষিদ্ধ হয়ে গিয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই