মেইন ম্যেনু

গ্রেগের সঙ্গে সাক্ষাৎ কি এড়াবেন সচিন, জল্পনা

মহাবিতর্কের মধ্যেই মুখোমুখি দেখা হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হল।

১৮ নভেম্বর রাতে ঐতিহাসিক মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ড-এ (এমসিজি) সচিন তেন্ডুলকরের সঙ্গে দেখা হতে পারে তাঁর ‘রিংমাস্টারের’। তবে ‘ভারতীয় ক্রিকেটকে পুরোপুরি বিপর্যস্ত করার’ অভিযোগ যাঁর বিরুদ্ধে এনেছেন সচিন, সেই গ্রেগ চ্যাপেলের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষ পর্যন্ত তিনি এড়িয়ে যাবেন কিনা, এখন সেটাই দেখার। বিশেষত এমন একটি সময়ে এই সাক্ষাৎকারের সম্ভাবনা যখন সচিনের আত্মজীবনী থেকে গ্রেগ-বিতর্কের ধোঁয়া বেরোচ্ছে।

১৪ তারিখ জি-২০ সম্মেলনে যোগ দিতে অস্ট্রেলিয়া পৌঁছবেন মোদী। সেখানে প্রায় দশটি দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের পর শেষ দিন রাতে তাঁর সম্মানে একটি বিশেষ এবং অভিনব ভোজসভার আয়োজন করেছেন সে দেশের প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবট। অন্য কোথাও নয়, অনুষ্ঠানটি হবে এমসিজি-তেই। বিদেশ মন্ত্রক জানাচ্ছে, ক্রিকেট যেহেতু দু’দেশেরই রক্তে, তাই এই ভোজসভাকে স্মরণীয় করে রাখতে এই আয়োজন। এখনও পর্যন্ত স্থির রয়েছে, দু’দেশের প্রথম সারির ক্রিকেটার এবং অস্ট্রেলিয়ার রাজনীতিবিদ ও সরকারি আমলা মিলিয়ে বাছাই করা এক হাজার জন নৈশভোজে উপস্থিত থাকবেন। কূটনৈতিক সূত্রে জানা গিয়েছে, সেখানে থাকবেন অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন ক্রিকেটার, জাতীয় দলের অধিনায়ক এবং বর্তমান ক্রিকেটাররাও। প্রাথমিক ভাবে স্থির হয়েছে গ্রেগ চ্যাপেল, স্টিভ ওয়, মার্ক ওয়, শেন ওয়ার্ন, ব্রেট লি-র মত ক্রিকেটাররা নিমন্ত্রণ পেয়েছেন। সূত্রের খবর, বেশ কিছু ভারতীয় ক্রিকেট-তারকাকে নৈশভোজে হাজির থাকার জন্য আমন্ত্রণ করা হয়েছে। যার মধ্যে রয়েছেন, সচিন রমেশ তেন্ডুলকরও। তবে এখনও তাঁর তরফ

থেকে আমন্ত্রণ গ্রহণ করার ব্যাপারে কোনও পাকা কথা পাওয়াযায়নি। বিদেশ মন্ত্রকের এক কর্তার কথায়, “যাঁরা যাওয়ার ব্যাপারে পাকা কথা দিয়ে দিয়েছেন তাঁদের মধ্যে রয়েছেন, সুনীল গাওস্কর, কপিলদেব এবং ভি ভি এস লক্ষ্মণ। বাকিরাও দু’তিনদিনের মধ্যে জানিয়ে দেবেন। এই তালিকায় রয়েছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ও।” ক্রিকেট শিবির সূত্রে খবর, ১৮ নভেম্বর কলকাতায় আমন্ত্রণ রয়েছে সচিনের।

সম্প্রতি মোদী টুইট করে বলেছেন, “ভারত এবং অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট নিয়ে আবেগ ভাগাভাগিকরে নেয়। ঐতিহাসিক মেলবোর্ন ক্রিকেট মাঠে আমাকে নিমন্ত্রণ করার জন্য প্রধানমন্ত্রী অ্যাবটকে আমি ধন্যবাদ জানাই।” আজ বিদেশ মন্ত্রকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ওই সন্ধ্যায় ক্রিকেটের আবহ তৈরি করতে ত্রুটি রাখবে না অস্ট্রেলিয়ার প্রশাসন। সাজানো হবে ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার বিগত ৃম্যাচগুলির বিভিন্ন স্মারক, ট্রফি। মোদী ঘুরে দেখবেন ঐতিহাসিক এমসিজি-র ভিতরের প্রদর্শনী কক্ষগুলি। এর আগেই ব্র্যাডম্যানের সংগ্রহশালা থেকে স্মারকগুলি কলকাতা-সহ ভারতের বিভিন্ন শহরে প্রদর্শনীর বিষয়ে কথা হয়েছিল। মোদীর সফরে বিষয়টি চূড়ান্ত হবে বলে খবর।






মন্তব্য চালু নেই