মেইন ম্যেনু

গণবিবাহে ৭০০ নববধূকে কাঠের ব্যাট উপহার মন্ত্রীর, কারণ ভয়ানক

একেবারে অবাক উপহার দিয়ে সবাইকে অবাক করে দিলেন মন্ত্রিমশাই। উপনয়ন বা জন্মদিনে খেলার ব্যাট উপহার শুনেছেন কিন্তু বিয়েতে! তাও আবার নববধূর হাতে। গণবিবাহের আসরে আরও অনেক উপহারের সঙ্গে সঙ্গে নববধূদের হাতে হাতে কাঠের ব্যাট ধরিয়ে দিলেন মধ্যপ্রদেশের বিজেপি মন্ত্রী গোপাল ভার্গব।

স্থানীয় ভাষায় এই ধরনের ব্যাটকে বলে ‘মোরগি’। কাপড় কাচার জন্য ব্যবহার করা হয় এই কাঠের ব্যাট। কিন্তু মন্ত্রীর পরামর্শ স্বামী মদ্যপ অবস্থায় বাড়িতে ঢুকলেই এই মোরগি দিয়েই শায়েস্তা করতে হবে। মন্ত্রীর পরামর্শ শুনে লজ্জা পেলেও ৭০০ নববধূকেই হাত পেতে নিতে হয়েছে মন্ত্রিমশাইয়ের উপহার। প্রতিটি ব্যাটের উপরে লেখা— ‘শরাবিয়োঁ কে সুতারা হেতু ভেট, পুলিশ নেহি বোলেগি’। সাদা বাংলায় যার অর্থ— মদ্যপদের শায়েস্তা করার উপহার, পুলিশ নাক গলাবে না।

১.৬৫ কোটি দিয়ে ডিজেল গাড়ি কিনলেন বিধায়ক। ভুল করে পাম্প ভরল পেট্রল। তারপর বিধায়ক যা করলেন
মধ্যপ্রদেশের সাগর জেলায় অক্ষয় তৃতীয়া উপলক্ষে শনিবার এক গণ বিবাহের আসরে গিয়েছিলেন রাজ্যের পঞ্চায়েতিরাজ ও গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী গোপাল ভার্গব। সেখানে ৭০০ পাত্রপাত্রীর বিবাহ হয়। মন্ত্রী জানিয়েছেন, এই সব এলাকার মহিলারা প্রায়ই তাঁর কাছে মদ্যপ স্বামীর অত্যাচার সম্পর্কে অভিযোগ জানাতে আসেন। তিনি বলেন, ‘এলাকায় ঘোরার সময়ে অভিযোগ শুনি, মহিলাদের সামান্য রোজগারও স্বামীর মদ্যপানের জন্য কেড়ে নেয়। এমনকী, মহিলাদের উপরে শারীরিক নির্যাতনও চালায় স্বামীরা।’

এই কারণেই মহিলাদের হাতে মদ্যপ স্বামীদের মোকাবিলা করার অস্ত্র তুলে দিয়েছেন বলেও জানিয়েছেন গোপাল ভার্গব। আরও মহিলার হাতে এমন অস্ত্র তুলে দিতে তিনি দশ হাজার এমন ব্যাট অর্ডার দিয়েছেন বলেও জানিয়েছেন।

আইন হাতে তুলে নেওয়ার এমন পরামর্শ দিয়ে তিনি কোনও ভুল করছেন না বলেও জানিয়েছেন মন্ত্রী। তাঁর বক্তব্য, ‘শুধু সরকার বা পুলিশ মদ্যপদের অত্যাচার বন্ধ করতে পারবে না। সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। সাধারণ মানুষ এগিয়ে না এলে এই ধরনের সামাজিক সমস্যার মোকাবিলা সম্ভব নয়।’






মন্তব্য চালু নেই