মেইন ম্যেনু

কে হচ্ছেন সুরঞ্জিতের উত্তরসূরী?

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ছিলেন সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনে দলের বটবৃক্ষ। তার মতো বর্ষীয়ান ও জনপ্রিয় নেতা থাকায় এ আসনটি নিয়ে কোনও চিন্তাই করতে হতো না দলকে। সম্প্রতি তিনি মারা যাওয়ায় আসনটিকে ঘিরে নতুন করে ভাবতে হচ্ছে দলকে। শূন্য এ আসনের উপ নির্বাচনে কে হচ্ছেন দলের প্রার্থী তা নিয়ে সুনামগঞ্জজুড়ে চলছে নানা জল্পনা কল্পনা। আগামী ৩০ মার্চ এ উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। ২৬ ফেব্রুয়ারি রবিবার এ আসনটি নিয়ে সংসদীয় বোর্ডের সভা হওয়ার কথা রয়েছে।

জানা গেছে, ইতোমধ্যে প্রয়াত সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের স্ত্রী ড. জয়া সেনগুপ্ত, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ মতিউর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউল করিম শামীম, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম, লন্ডন প্রবাসী শ্রমিকলীগ নেতা শামসুল হক চৌধুরীসহ আরও কয়েকজন দলীয় কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

শুক্রবার বিকেলে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যলয় থেকে জয়া সেনগুপ্তের পক্ষে পুত্র সৌমেন সেনগুপ্ত ও মতিউর রহমানের পক্ষে তার দলীয় সমর্থকরা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

প্রয়াত সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের ব্যক্তিগত সহকারী কামরুল হক জানান, ‘সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের সংসদীয় আসন দিরাই ও শাল্লা উপজেলা আওয়ামী লীগ জয়া সেনগুপ্তকে সমর্থন জানিয়েছে। এ জন্য তিনি দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।’

জয়াসেন গুপ্ত বলেন, ‘দিরাই শাল্লাবাসী আমাদের আত্মার আত্মীয়। তাদের আশা আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটাতে ব্যাপক জনদাবি ও অকুণ্ঠ সমর্থনের প্রেক্ষিতে আমি দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করেছি। দল আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি প্রয়াত সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের অসমাপ্ত উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সমাপ্ত করে দিরাই শাল্লাকে একটি উন্নত জনপদ হিসেবে গড়ে তুলবো। এজন্য আমি এলাকাবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করি।’

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক এমপি আলহাজ মতিউর রহমান বলেন, ‘বিগত তিনটি নির্বাচনে দলীয়ভাবে সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনে আমি মনোনীত হয়েছিলাম, কিন্তু দলের প্রতি আনুগত্য দেখিয়ে ও সুরঞ্জিত দাদার সম্মানে আমি মনোনয়ন ত্যাগ করেছি। কিন্তু, আজ তিনি নেই। আর দিরাই-শাল্লার জনগণ আমাকে ভালোবাসে। তাদের ভালোবাসার জন্যই এবার আমি দলীয় মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছি। দলীয় সভানেত্রী যদি আমাকে মনোনয়ন দেন তাহলে আমি নির্বাচন করবো। অবহেলিত দিরাই শাল্লাবাসীর সুষম উন্নয়ন নিশ্চিত করবো।’

দলীয় সূত্রে জানা যায়, রবিবার ২৬ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ড এবং স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা হবে। সেখানেই ঠিক হবে সুনামগঞ্জ-২ আসনে উপ নির্বাচনে কে দলীয় মনোনয়ন পাবেন?

তবে বিএনপি উপ নির্বাচনে অংশ নেবে কি না-এবিষয়ে দলীয় কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক সাবেক এমপি নাছির উদ্দিন চৌধুরী বলেন,‘দল এখনও এবিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেয়নি।’

এদিকে, নির্বাচনে প্রার্থী হতে আওয়ামী লীগ থেকে অর্ধ ডজন প্রার্থীর নাম শোনা গেলেও সর্বশেষ প্রয়াত সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের স্ত্রী ড. জয়া সেনগুপ্ত ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক এমপি আলহাজ মতিউর রহমান রয়েছেন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে। দিরাই-শাল্লার সরকারি দলের নেতা কর্মীরা বর্তমানে এই দু’জনকে নিয়ে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে শুক্র, শনি ও রবিবারও এ আসনে উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতে পারবেন প্রার্থীরা।

শাল্লা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন চৌধুরী বলেন, ‘প্রয়াত সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের অসমাপ্ত উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সমাপ্ত করতে দুটি উপজেলার সর্বস্তরের জনগণের দাবির মুখে প্রার্থী হয়েছেন জয়া সেনগুপ্ত। তাকে নির্বচনে বিজয়ী করতে আমাদের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যহত থাকবে।’

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবীর ইমন বলেন, ‘আমরা চাই এ আসনে সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের উত্তরসূরী হিসেবে ড. জয়া সেনগুপ্ত নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুন। তিনি সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি তাকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হলে দল তার সঙ্গে কাজ করবে।’

এ ব্যাপারে দিরাই পৌরসভার সাবেক মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজিজুর রহমান বুলবুল বলেন, ‘আমরা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের স্ত্রী ড. জয়া সেনগুপ্তকে এ আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে দেখতে চাই। এজন্য কেন্দ্রে আবেদন করা হয়েছে।’

উল্লেখ্য, এ আসনের মোট ভোটার ২ লাখ ৪৫ হাজার ৮৩৮ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ২৩ হাজার ৪৭৪ জন ও মহিলা ভোটার ১ লাখ ২২ হাজার ৩৬৪ জন।






মন্তব্য চালু নেই