মেইন ম্যেনু

কুয়েটে একদশ প্রতিষ্ঠাবাষিকী উদযাপন

বর্ণিল আয়োজন আর বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) একাদশ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী, বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর। দিনটিকে সামনে রেখে সেজেছিল পুরো বিশ্ববিদ্যালয়, সর্বত্রই ছিল সাজ-সাজ রব। কুয়েট দিবস উপলক্ষে সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে অনুষ্ঠিত হয় প্রীতি সমাবেশ। এরপর সকাল ১০টা ১০ মিনিটে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের সঙ্গে সঙ্গে উত্তোলন করা হয় জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা।

কুয়েটের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর জাতীয় পতাকা এবং বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন কমিটির সভাপতি প্রফেসর ড.শিবেন্দ্র শেখর শিকদার বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলন করেন। এরপর প্রধান অতিথি বেলুন ও শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের শুভ উদ্বোধন করেন।

শুভেচ্ছা বক্তৃতা দেন, বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন কমিটির সভাপতি ও পুরকৌশল অনুষদের ডিন প্রফেসর ড.শিবেন্দ্র শেখর শিকদার। এরপর সকাল সাড়ে ১০টার দিকে অনুষ্ঠিত হয় আনন্দ শোভাযাত্রা। শোভাযাত্রায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীসহ বাহারী সাজে সজ্জিত হয়ে শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেন।

সকাল ১১টায় বৃক্ষ রোপন কর্মসূচি ও ১১টা ১০ মিনিটে অডিটরিয়ামের সন্মুখে ব্লাড ডোনার হিসেবে নাম অন্তর্ভুক্তিকরণ কর্মসূচি পালিত হয়। এতে বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থীসহ অন্যান্যরা অংশগ্রহণ করেন।

সকাল ১১টা ২০ মিনিটে অডিটরিয়ামে টেকনিক্যাল পোস্টার সেশনের উদ্বোধন করেন কুয়েট ভাইস-চ্যান্সেলর। একই স্থানে ৩ বেলা সাড়ে ১১টায় টেকনিক্যাল সেমিনার এবং দুপুর ১২টায় কুয়েটের উপর নির্মিত শর্ট ফিল্ম প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। দুপুর ১২টা ১০ মিনিটে অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। প্রফেসর ড.শিবেন্দ্র শেখর শিকদারের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কুয়েটের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, যন্ত্রকৌশল অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. সৈয়দ আলী মোল্লা, তরিৎ প্রকৌশল অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. নুরুন্নবী মোল্লা ও পরিচালক (ছাত্র কল্যাণ) প্রফেসর ড. মো. ওসমান গনি। এ সময় কুয়েটের বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীরাও আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অন্যান্য অনুষ্ঠানের মধ্যে দর্শনার্থীদের জন্য বিভিন্ন বিভাগের ল্যাবসমূহ উন্মক্তকরণ, ছাত্র-শিক্ষক প্রীতি ফুটবল ম্যাচ, দোয়া মাহফিল ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।






মন্তব্য চালু নেই