মেইন ম্যেনু

কালশীর ঘটনা একটা দুর্ঘটনা: স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

রাজধানীর মিরপুরের কালশীতে বিহারি ক্যাম্পে ১০ জন নিহতের বিষয়ে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ‘এটা একটা দুর্ঘটনা। এ ঘটনায় যে-ই জড়িত হোক না কেন, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

আজ শনিবার বিকেলে ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গের সামনে সাংবাদিকদের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

সংঘর্ষের সময় আগুন কীভাবে লাগল— এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত সম্পর্কে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। যেভাবে পটকা ফোটানো হয়েছে, এর কোনো স্ফুলিঙ্গ থেকে কোনোভাবে আগুন লেগে থাকতে পারে।

তিনি বলেন, কেউ উসকানি দিয়ে পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে কি না, তা খতিয়ে দেখতে পুলিশের একজন যুগ্ম কমিশনারের নেতৃত্বে কমিটি গঠন করা হয়েছে। সন্দেহভাজন হিসেবে এরই মধ্যে কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

সাংবাদিকদের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, রাত সাড়ে তিনটার দিকে তিনি খবর পেয়েছেন মিরপুরের কালশী এলাকায় বিকট শব্দে পটকা ফোটানো হচ্ছে। তবে সংঘর্ষ শুরু হয়েছে ভোরে।

এ ঘটনায় স্থানীয় সাংসদ ইলিয়াস মোল্লার সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন নিহত লোকজনের স্বজনেরা। এ ছাড়া নিহত ১০ জনের মধ্যে আজাদ নামে এক ব্যক্তি পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এ প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, এ ঘটনায় যে-ই জড়িত থাকুক না কেন, কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না।

এ সময় সাংবাদিকদের ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার বেনজীর আহমেদ উষ্মা প্রকাশ করে বলেন, শবে বরাতে পটকা বা আতশবাজি ফোটানোর বিষয়ে আগে থেকেই পুলিশের পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল। এ বিষয়ে নাগরিকদেরও কিছু দায়িত্ব আছে।

তিনি প্রশ্ন তোলেন, ‘পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে কি তবে ঘরে ঘরে গিয়ে “স্তব্ধ” করতে হবে?

রাজধানীর পল্লবীর কালশীতে শনিবার ভোর থেকে বিহারিদের সঙ্গে স্থানীয় লোকজন ও পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় বিহারিদের কয়েকটি ঘরে দেওয়া আগুনে একই পরিবারের সাতজনসহ অন্তত ১০ জন নিহত হয়েছে। নিহত লোকজনের মধ্যে দুই শিশু রয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই