মেইন ম্যেনু

এবারও বিগ ব্যাশে খেলছেন সাকিব

২০১৫ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বিদেশে লিগ খেলার ব্যাপারে সাকিব আল হাসানের ওপর নিষেধাজ্ঞা ছিল। গত ৪ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সাকিবের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে। ফলে এ বছরেই অস্ট্রেলিয়ার ঘরোয়া ক্রিকেট লিগ বিগ ব্যাশে খেলার দরজা খুলে যায় সাকিবের।

কিন্তু দল পাওয়া যাবে কি না, তা নিয়ে বেশ চিন্তিত ছিলেন সাকিব। আগামী বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ার বিগ ব্যাশের পর্দা উঠবে। বিগ ব্যাশের গত আসরে সাকিব অ্যাডিলেড স্ট্রাইকার্সের হয়ে খেলেছিলেন।

সাকিব জানিয়েছেন, এবারের লিগেও অংশ নিচ্ছেন তিনি। তবে সবকিছু চূড়ান্ত হলেই সবাইকে জানাবেন তিনি। সাকিবের ভাষ্য,‘দল প্রায় চূড়ান্ত। কথাবার্তা চলছে। কিছু পেপার ওয়ার্ক বাকি আছে। ইনশা আল্লাহ দু-এক দিনের মধ্যে ভালো কিছু জানতে পারবেন। কনফার্ম না হয়ে কিছুই বলতে চাই না।’

এদিকে আগামী বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে বসছে ওয়ানডে বিশ্বকাপ। বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়াতে চারটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে। দলের আগে সাকিবের বিগ ব্যাশে অংশ নেওয়াটা বাংলাদেশের জন্য প্লাস পয়েন্ট।

এ সম্পর্কে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার বলেন, `অবশ্যই বিশ্বকাপের আগে বিগ ব্যাশে অংশ নেওয়াটা ভালো একটা অভিজ্ঞতা হবে আমার জন্য। এমনকি আমাদের দল দুই সপ্তাহ আগে ওখানে যাবে। আর আমি যদি তিন-চার সপ্তাহ আগে যেতে পারি, তাহলে আমার জন্য এবং দলের জন্য ভালোই হবে। আশা করি, ভালোই প্রস্তুতি হবে। আর বিশ্বকাপ আমাদের জন্য অনেক বড় একটি ইভেন্ট।`

অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের সিমিং কন্ডিশনের উইকেট সম্পর্কে সাকিব বলেন, ‘বিশ্বকাপ হয় আইসিসির অধীনে। আর পিচ কিন্তু আইসিসির কিউরেটররা বানাবেন। বিশ্বকাপের উইকেট আইসিসির কিউরেটররা তৈরি করে থাকেন, সেহেতু এখানে কেউই সুবিধা পাবে না। কারণ, বিশ্বকাপে সবাই চাইবে অনেক রান দেখতে এবং উইকেটও দেখতে। আর তাই ক্রিকেটের মজাটাই এখানে। তাই আইসিসিও চাইবে সেভাবেই উইকেট তৈরি করতে।’






মন্তব্য চালু নেই