মেইন ম্যেনু

১৯৮৪-র শিখ-বিরোধী দাঙ্গা: সনিয়ার বিরুদ্ধে মামলা খারিজ মার্কিন আদালতে

দিলীপ মজুমদার (কলকাতা): ১৯৮৪-র শিখ-বিরোধী দাঙ্গার ব্যাপারে সনিয়া গাঁধীর বিরুদ্ধে শিখ গোষ্ঠী ‘শিখস ফর জাস্টিস’ (এসএফজে)-এর দায়ের করা মামলা খারিজ করে দিল মার্কিন আদালত।১৩ পৃষ্ঠার রায়ে মার্কিন ডিস্ট্রিক্ট জজ ব্রায়ান কোগান কংগ্রেস সভানেত্রীকে ওই দাঙ্গার জন্য ‘ব্যক্তিগত ভাবে দায়ী’ করা চলে না বলে অভিমত জানিয়েছে যদিও তাঁর বিরুদ্ধে ভবিষ্যতে শিখ সংগঠনটির নতুন মামলা দায়ের করার রাস্তাও খোলা রেখেছে আদালত,।তাদের ফের মামলা করা থেকে নিরস্ত রাখছে না।

বিবেচনা করে দেখার জন্য পর্যাপ্ত তথ্য নেই, এই বক্তব্য পেশ করে সনিয়ার পক্ষ থেকে শিখ সংগঠনের মামলাটি খারিজ করে দেওয়ার যে আবেদন পেশ করা হয়েছিল, তা অনুমোদন করেন বিচারক।তবে ভবিষ্যতে যাতে আর কোনও মামলা শিখ গোষ্ঠীটি করতে না পারে, সেজন্য ইনজাংশন জারির যে আবেদন কংগ্রেস সভানেত্রীর কৌঁসুলি করেছেন, তা খারিজ করে দিয়েছেন তিনি।

বিচারকের বক্তব্য, ১৯৮৪-র দাঙ্গার এক দশকের বেশি সময় বাদে ১৯৯৮ সালে কংগ্রেস সভানেত্রী হন সনিয়া।তাই ১৯৮৪-র আইন-বহির্ভূত হত্যা বা নির্যাতনের অভিযোগের জন্য তাঁকে ব্যক্তিগত কাঠগড়ায় তোলা যাবে না।তিনি এও বলেন, এসএফজে মামলাটি দাখিল করার প্রায় ৩০ বছর আগে শিখ গণহত্যা ঘটে গিয়েছে সুতরাং একটা সীমাবদ্ধতার অবকাশ থেকে যাচ্ছে।

আদালতের নির্দেশের প্রেক্ষিতে সনিয়ার কৌঁসুলি রবি বাটরা সংবাদ সংস্থাকে বলেন, ন্যায়বিচার সুপ্রতিষ্ঠিত হল।শিখ সংগঠনটি কু-অভিসন্ধি নিয়ে স্রেফ প্রচার পাওয়ার লক্ষ্যে যে সারবত্তাহীন মামলা করেছিল, সেটি খারিজ হয়ে গিয়েছে।অন্যদিকে শিখ সংগঠনটির আইনি উপদেষ্টা জি এস পান্নুন বলেন, আদালত ১৯৮৪-র দাঙ্গার ব্যাপারে তাঁদের আগামীদিনে মামলা করা থেকে নিরস্ত রাখার ।যে আবেদন কংগ্রেস সভানেত্রী জানিয়েছিলেন, তা মানেনি আদালত। তাই তাঁরা পরিকল্পনামাফিক শিখ গণহত্যার জন্য কংগ্রেস নেতাদের মার্কিন আদালতে দায়ী করে মামলা করে যাবেন।

এসএফজে ও তাদের সহযোগীদের বক্তব্য, শিখ গণহত্যায় জড়িত নেতাদের প্রতি সনিয়া গাঁধীর মনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত শিখ পরিবারগুলি ও পুরো সম্প্রদায় গভীরভাবে মর্মাহত।অন্যদিকে বাটরার আশা, এসএফজে এরপর মামলা তুলে নেবে, ভবিষ্যতে উচ্চতর আদালতে যাবে না।

প্রসঙ্গত, গত এপ্রিলেও শিখ সংগঠনটির কংগ্রেসের বিরুদ্ধে দায়ের করা একই ধরনের মানবাধিকার লঙ্ঘন সংক্রান্ত একটি মামলা বাতিল করে দিয়েছিলেন আরেক বিচারক আদালত সেবার বলেছিল, এমন মামলা করার কোনও নৈতিক এক্তিয়ার এসএফজে-র নেই।তাছাড়া আমেরিকার সঙ্গে কোনও সম্পর্ক নেই, এমন কোনও ঘটনা সংক্রান্ত মামলা, আবেদন শোনা হবে না মার্কিন আদালতে।






মন্তব্য চালু নেই