মেইন ম্যেনু

হরতালে লাভ নেই, ১৯ সালেই নির্বাচন : মায়া

হরতাল দিয়ে কোনো লাভ হবেনা, ২০১৯ সাল পর্যন্ত বিএনপিকে অপেক্ষা করতেই হবে বলে মন্তব্য করেছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া।
রোববার দুপুরে চাঁদপুরে ধনাগোদা নদীর উপর মতলব সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
মায়া বলেন, ‘নির্বাচন হবে ২০১৯ সালের ৫ জানুয়ারি। এর আগে হরতাল-অরাজকতা করে লাভ নেই। সেই দিন পর্যন্ত বিএনপিকে অপেক্ষা করতে হবে।’
রোববার দুপুর ২টার দিকে মতলব সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল এমপি এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম এমপি।
এ উপলক্ষে চরবাইশপুরে মেঘনা-ধনাগোদা সেচ প্রকল্পের বেড়িবাঁধের উপর চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মো. ইসমাঈল হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, ‘হরতালে যদি দেশের কোন লাভ ও উন্নয়ন না হয়, তাহলে এ হরতাল কিসের জন্য। যারা কথায় কথায় হরতার করে, তারা বেশিদিন এগোতে পারবে না।’
তিনি আরো বলেন, ‘আমরা উন্নয়নের রাজনীতি করি, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে। ২০১৬ সালের মধ্যে এ সেতুর কাজ সম্পন্ন করা হবে। মতলবের ২০ হাজার প্রান্তিক নদীভাঙন কবলিত পরিবারকে সাবলম্বী করার জন্য পরিকল্পনা গ্রহণ করা হবে।’
মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া আরও বলেন, ‘দুই বছরের মধ্যে মতলব সেতুর কাজ হবে। সেতুর সঙ্গে গ্যাসের কাজও চলবে। ফেব্রুয়ারির মধ্যে কালীপুর-গজারিয়া ফেরি সার্ভিস চালু হবে। তখন মতলবের মানুষ ঢাকায় অফিস করে বাড়ি এসে ঘুমাবে।’
এ সময় ষাটনল-ফরাজীকান্দি মেঘনা নদী শাসন করে পর্যটন কেন্দ্র করা হবে বলেও জানান মন্ত্রী।
মায়া-লোটাস কামালসরকারের নিজস্ব অর্থায়নে ৩০৪.৫১ মিটার দৈর্ঘ্য এবং ১০.২৫ মিটার প্রস্থ মতলব সেতু নির্মাণ কাজে ব্যয় হবে- ৮৪ কোটি ৬০ লাখ ৬৭ হাজার টাকা। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় এবং সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তর এটি বাস্তবায়ন করবে। এটি বাস্তবায়িত হলে সড়ক পথে চাঁদপুর থেকে ঢাকার দূরত্ব ৪০ কিলোমিটার কমে যাবে।
এতে আরও বক্তব্য দেন পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম মোহন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. শামসুল হক ভূঁইয়া এমপি, সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটোয়ারী দুলাল, কেন্দ্রীয় সদস্য সুজিত রায় নন্দী, মহিলা সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নূরজাহান বেগম মুক্তা, হোসনে আরা বেগম বাবলী, মতলব উত্তর উপজেলা আ.লীগের সভাপতি অ্যাড. রুহুল আমিন, দক্ষিণ উপজেলার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এএইচএম গিয়াসউদ্দিন, মতলব উত্তর উপজেলা চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ, মতলব দক্ষিণ উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক সিরাজুল মোস্তফা তালুকদার, মতলব উত্তর উপজেলার সাধারণ সম্পাদক এমএ কুদ্দুস, মতলব দক্ষিণ উপজেলার সাধারণ সম্পাদক বিএইচ কবির আহমদ।
সেতুর ভিত্তিপ্রস্তরের মাধমে মতলববাসীর ৪০ বছরের লালিত স্বপ্ন বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে। মতলব ছাড়াও চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, রায়পুর ও শরীয়তপুরসহ দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগের খরচ ও সময় দুটোই কমবে।






মন্তব্য চালু নেই