মেইন ম্যেনু

‘হট’ হয়ে ‘হিট’ করুন বন্ধুকে

অনেকেই আছেন ফটোসুন্দরী নন্দিতা। বাস্তব আর ছবি যেন মিলতেই চায় না। ফোন, ফেসবুক বা ই-মেইলে ছবি দেখে ফেঁসে যাওয়া বন্ধুকে পেতে চাচ্ছেন আপন করে। এদিকে নিজের সামান্য দুর্বলতায় বেশ কাবু হয়ে আছেন। ভাবছেন আপনার বাস্তব চেহারায় ভেগে যাবে না তো বন্ধুটি? এই সমস্যা সমাধানে চাই কার্যকরী টনিক। সেজন্য বন্ধুর সঙ্গে প্রথম সাক্ষাতে যান ‘হট’ হয়ে, যাতে ‘হিট’ করতে পারেন ঠিক বাটনেই। এজন্য আপনাকে যা করতে হবে-

ভালোলাগা জানুন

প্রথম সাক্ষাতে যাওয়ার আগে জেনে নিন বন্ধুর ভালোলাগার তালিকা। অর্থাৎ তার পছন্দের সাজগোজ, পোশাক, রং, চুলের স্টাইল ইত্যাদি। তার পছন্দের যতটা সম্ভব পূরণ করার চেষ্টা করুন ধীরে ধীরে। যেদিন বুঝবেন বন্ধুর ভালোলাগা অনুযায়ী সব আয়োজন শেষ, তখনই দেখা করুন। বাকিটা রইলো আপনার পারফরম্যান্সের ওপর।

রং বাছাই

আপনি তার সঙ্গে কখন দেখা করতে যাচ্ছেন সেটা আগে ঠিক করুন। তারপর তার পছন্দের ওপর ভিত্তি করে সাজের আয়োজন করুন। যদি সন্ধ্যায় দেখা করেন, তবে নিঃসন্দেহে জমকালো সাজ দিতে পারেন। বিকেলে হলে স্নিগ্ধ সাজ। ঋতুর বিষয়টাও মাথায় রাখবেন। তবে মেয়েদের সাজের পোশাক সব সময়ই একটু উজ্জ্বল রঙের হলে ভালো মানায়।

সাজগোজ করে যান

শরীরের সঙ্গে মানানসই পোশাকটি পরে নিন। পারলে আগেই একবার ট্রায়াল দিয়ে রাখুন, যাতে বের হওয়ার সময় কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঝামেলায় পড়তে না হয়। সঙ্গে মিলিয়ে জুতা, ব্যাগ, হাতের ব্রেসলেট, নেইলপলিস, কানের দুল রাখুন। তবে যে পোশাকই পরুন না কেন, তাতে যেন শালীনতা বজায় থাকে।

মেক আপ

ছেলেদের ঘায়েল করতে একটু সময় নিয়ে মেকআপ করুন। চোখের সাজে আনুন জমকালো ভাব। কারণ চোখের সৌন্দর্যে ছেলেরা বেশি কুপোকাত হয়। এক্ষেত্রে স্মোকি মেক আপ প্রথম সাক্ষাতের জন্য যথেষ্ট আদর্শ।

মিষ্টি সুগন্ধি

আপনার পাশে এলেই যেন বন্ধুর মন ভালো হয়ে যায় এমন পারফিউম বাছাই করুন। বন্ধুকে কাছে টানে আপনার পারফিউমের গন্ধে। তাই অবশ্যই ভালো ব্র্যান্ড দেখে নিতে হবে। কারণ আপনি কখনোই একটি সত্যকে এড়াতে পারেন না। আর তা হলো- পারফিউমের গন্ধ দিয়ে বন্ধুটি আপনাকে বিচার করবে।

আগ্রহ দেখান

আপনার সঙ্গে হয়তো বন্ধুটির আজ প্রথম দেখা। তবু তার সম্পর্কে নিশ্চয় সব খোঁজ খবরই নেয়া শেষ? তাকে যদি সত্যিই ঘায়েল করতে চান, তার প্রতি আপনার আগ্রহ দেখান। অন্য কোনো বিষয়ে আপনার ব্যস্ততা তাকে নেতিবাচক ধারণা দেবে। না হলে আপনার এতো আয়োজন সবই বৃথা হয়ে যাবে।

অস্বস্তিতে ফেলা নয়

এমন কোনো বিষয়ে কথা বলবেন না যাতে আপনি তার কাছে অস্বস্তির হয়ে ওঠেন। কথার গতি অবশ্যই মৃদু আকর্ষণীয় থাকবে, যাতে আপনার প্রতিও তার আনাগ্রহ না জন্মায়। মেয়ে বলে বেশি লজ্জা দেখিয়ে একদম চুপ করে থাকবেন না। আপনার বন্ধুটিও হয়তো আপনার সঙ্গে কথা বলবে যথেষ্ট। তবে আপনিও কিছু কথা বলুন। কথার মাঝে বুঝিয়ে দিন এই দিনের অপেক্ষায় ছিলেন, যাতে তার ভালো লাগার মাত্রা বাড়ে।






মন্তব্য চালু নেই