মেইন ম্যেনু

“সেক্স ডল” কি কমাতে পারবে দেহ ব্যবসা ?

নারীদের স্থান দখল করে নিচ্ছে সেক্স ডল। জীবন্ত নারীর মত অনুভূতি না থাকলেও এই সেক্স ডল চীনের পুরুষদের যৌন চাহিদা মেটাতে নারীর বিকল্প হিসেবে কাজ করছে। সম্প্রতি এই সেক্স ডলের বিক্রি বেড়ে গেছে।

বেইজিংয়ে বিক্রি হওয়া এরকম সেক্স ডলের মূল্য প্রায় দুই হাজার পাঁচশ’ ডলার। থার্মোপ্লাস্টিক ইলাস্টোমার দিয়ে তৈরি ওই সেক্স ডল সিলিকনের চাইতেও নরম এবং মানুষের অন্যান্য অঙ্গ-প্রতঙ্গের মতো এরও আছে যৌনাঙ্গ।

অবিকল জীবন্তের মতোই৷ নরম তুলতুলে শরীরে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ৷ যৌনতার চাহিদা সে মিটিয়ে দিতে পারে৷ তবুও সে সত্যি কোনও নারী নয়৷ চায়নার বাজারে বিক্রি হচ্ছে এরকমই ‘সেক্স ডল’৷

উপাদান হিসেবে এই পুতুলে আছে থার্মোপ্ল্যাস্টিক ইলাস্টোমার নামে একধরনের রবারগোত্রীয় পদার্থ৷ যা পদার্থ হিসেবে সিলিকনের থেকেও নরম৷ চিনের পুরুষদের কাছে এই সেক্স ডলের চাহিদা এখন তুঙ্গে৷ নাহ শরীরি চাহিদা পূরণে তা যে নারীর থেকেও বেশী সক্ষম তা নয়৷ এমনকী দামেও খুব সস্তা নয়৷ তবে এই পুতুল এমন কিছু সুবিধা তুলে দিচ্ছে যা সমাজিক কাঠামোর পরিপন্থী নয়৷

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক পুরুষই জানাচ্ছেন, এই পুতুল তাঁদের ইচ্ছে পূরণ করছে তো বটেই৷ কিন্তু তাতে কোনও অপরাধবোধ থাকছে না৷ বিবাহিত পুরুষরাও জানাচ্ছেন তাঁরা তাঁদের স্ত্রীকে ঠকাচ্ছেন এমনটাও নয়৷ অথচ অন্য কোনও উপায়ে এই চাহিদা মেটাতে গেলে হয়তো সেই গ্লানির মধ্যে পড়তে হত৷ দেহব্যববসার রমরমাও অনেকাংশেই কমিয়ে দিচ্ছে এই সেক্স ডল৷ সূত্র: ইন্টারনেট






মন্তব্য চালু নেই