মেইন ম্যেনু

সাতক্ষীরার ভোমরা স্থল বন্দর দিয়ে সকল পণ্য আমদানি-রপ্তানীর সুযোগ প্রদানসহ পাঁচ দফা দাবিতে স্মারকলিপি পেশ করেছে সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশন

সাতক্ষীরার ভোমর স্থল বন্দর দিয়ে সকল পণ্য আমদানি-রপ্তানীর সুযোগ প্রদানসহ পাঁচ দফা দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর বরাবর স্মারকলিপি পেশ করেছ ভোমরা স্থল বন্দর সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশন।
বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় সাতক্ষীরার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মহাসিন আলীর মাধ্যমে এ স্মারকলিপি পেশ করা হয়।

স্মারকলিপি প্রদান কালে এ সময় উপস্থিত ছিলেন, ভোমরা স্থল বন্দর সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি নিছার উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক অহিদুল ইসলাম, সাতক্ষীরা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি নাছিম ফারুক খান মিঠু প্রমুখ।

ভোমরা স্থল বন্দর সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি নিছার উদ্দিন আহমেদ জানান, একই দাবিতে ২৮ ও ৩০ নভেম্বর কর্মবিরতি কর্মসূচি পালন করবে ভোমরা স্থর বন্দর সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশন। ##

 

সাতক্ষীরা জেলা আইনজীবী সমিতির রেকর্ডীয় জমি পুলিশ প্রশাসন কর্তৃক

জবর দখলের প্রতিবাদে দুই ঘণ্টা কর্মবিরতি ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত

সাতক্ষীরা জেলা আইনজীবী সমিতির রেকর্ডীয় জমি পুলিশ প্রশাসন কর্তৃক জবর দখলের প্রতিবাদে দুই ঘণ্টা কর্মবিরতি ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে আইনজীবীরা। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত আইনজীবীরা আদালত বর্জন করে কর্মবিরতি পালন করে। পরে আদালত চত্বরে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে জবর দখলকৃত জমি ফেরত না দেওয়া হলে সাতক্ষীরার পুলিশ প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের এবং আগামী সোমবার থেকে অনশন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।
মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন- জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট এম শাহ আলম ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সাত্তার।
আইনজীবীরা জানান, পুরাতন আদালত ভবন সংলগ্ন জেলা আইনজীবী সমিতির রেকর্ডীয় জমি সম্প্রতি জেলা পুলিশ প্রশাসন ঘেরা-বেড়া দিয়ে দখল করে নেয়। যা ১৮৭২ সাল থেকে আইনজীবীরা ভোগ দখল করে আসছে। এ ঘটনায় আইনজীবীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সঞ্চার হয়। বিষয়টি নিয়ে জেলা আইনজীবী সমিতি ২৬ নভেম্বর জরুরী সাধারণ সভা করেন এবং আন্দোলনে যাওয়ার ঘোষণা দেন। এরই প্রেক্ষিতে দুই ঘণ্টা কর্মবিরতি ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।
সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মীর মোদাচ্ছের হোসেন এই জায়গাটি পুলিশ প্রশাসনের দাবী করে জানান, সেখানে ফুলের বাগান করে সৌন্দর্য বৃদ্ধি করা হয়েছে। ###

 

সাতক্ষীরার তালায় প্রায় ২কেটি টাকা ব্যয়ে মাতৃ ও শিশু স্বাস্থ্য প্রশিক্ষন কেন্দ্রের উদ্বোধন
বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির উদ্যেগে বৃহস্পতিবার দুপুরে সাতক্ষীরার তালা উপজেলার তেতুলিয়া গ্রামে প্রায় ২কেটি টাকা ব্যয়ে মাতৃ ও শিশু স্বাস্থ্য এবং প্রশিক্ষন কেন্দ্রের উদ্বোধন করা হয়েছে। বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান প্রফেসার ডাঃ এম এস আকবর( এম পি) প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে এর উদ্বোধন করেন। শেখ আফতাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির ব্যাবস্থাপনা পরিষদ সদস্য রেহানা আশিকুর রহমান, জার্মান রেডক্রসের সিনিয়র কর্মকর্তা রিকো ওয়ালেন্টা, সাতক্ষীরা রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের সেক্রেটারি শেখ নুরুলহক, তেতুলিয়া ইউ পি চেয়ারম্যান মিয়াজান মোড়ল প্রমুখ। জার্মান রেডক্রসের আর্থিক সহযোগিতায় উক্ত কেন্দ্রটি নির্মিত হয়েছে। যা জনগনের স্বাস্থ্য সেবাপ্রদানের  পাশাপাশি দূর্যোগকালিন আশ্রয়কেন্দ্র হিসাবে ব্যবহৃত হবে । উক্ত কেন্দ্রে একজন প্রশিক্ষিক মিডওয়াইফ, ১ জন সহকারি মিডওয়াইফ ও ৪জন স্বাস্থকর্মি ২৪ ঘন্টা সেবা প্রদান করবেন। প্রকল্পটি দূর্যোগ ব্যবস্থপনা ও প্রশমনে মহিলাদের অংশগ্রহনে নতুন ধারনা দিয়ে ডিজাষ্টার নার্সিং বিষয়ে এই অঞ্চলের মানুষকে প্রশিক্ষণ প্রদান করবে। প্রধান অতিথি এ সময় বলেন বর্তমান প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য এসব সম্ভাব হয়েছে । তিনি আরো বলেন, মাতৃ ও শিশু স্বাস্থ্য প্রশিক্ষন কেন্দ্রেটি পরিচালনা করার জন্য ১৫ সদস্য বিশিষ্ট্য একটি টিম এখানে সব সময় কাজ করবে । সমগ্র অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন ডাঃ শাহনা জাফর।###

 

অবৈধভাবে ভারতে যাওয়ার সময় সাতক্ষীরার শাখরা সীমান্ত থেকে ৫ বাংলাদেশী যুবক আটক
ভালো কাজের সন্ধানে অবৈধভাবে ভারতে যাওয়ার সময় সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার শাখরা সীমান্ত এলাকা থেকে ৫জন বাংলাদেশী যুবককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে বিজিবি। বৃহস্পতিবার সকালে তাদেরকে আটক করা হয়। আটককৃতরা হলেন,শরিয়তপুর জেলার সখিপুর উপজেলার ডিয়ামখালী গ্রামের লিটন বারী,ইয়াছিন মিয়া,রিপন মিয়া,সুমন মিয়া ও খলিল মিয়া।
৩৪ বিজিবি’র অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল শামসুল কবির জানান, আটককৃতরা অবৈধভাবে ভারতে যাওয়ার সময় শাখরা বিওপি বিজিবি’র সদস্যরা তাদেরকে আটক করে। আটককৃত সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তাদেরকে ভারতের তামিলনাড়– রাজ্যে সাত হাজার টাকা বেতনের চাকুরী দেয়ার আশ্বাসে পঁয়ত্রিশ হাজার টাকা নিয়ে তাদের সীমান্ত এলাকায় রেখে সঙ্গে থাকা দালালরা পালিয়ে যায়।###

সাতক্ষীরায় ভাসুর কর্তৃক এক বিধবার সহায় সম্পত্তি জোর পূর্বক নিজের দখলে রাখার অভিযোগ উঠেছে
সাতক্ষীরায় কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ভাসুর কর্তৃক এক বিধবার সহায় সম্পত্তি জোর পূর্বক নিজের দখলে রাখার অভিযোগ উঠেছে। ভাসুরের অত্যাচারে দু’টি এতিম সন্তানকে নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন ওই বিধবা। গতকাল বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ থানার পাইকাড়া গ্রামের মৃত ইলিয়াস হোসেনের স্ত্রী স্কুল শিক্ষক আনজুমনোয়ারা বেগম এই অভিযোগ করেন ।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে শিক্ষক আনজুমনোয়ারা বেগম বলেন, ১৯৮৬ সালে কালিগজ্ঞ উপজেলার পাইকাড়া গ্রামের আলহাজ্ব এজাহার হোসেনের ছেলে ইলিয়াস হোসেনের সাথে তার বিয়ে হয়। এতিম দু’টি বাচ্চা রেখে ২০০০ সালে ক্যান্সারে তার স্বামী মারা যান। স্বামীর মৃত্যুর এক বছর পর তিনি নলতা কে,বি, আহসান উল¬াহ প্রি-ক্যাডেট এণ্ড হাইস্কুলে শিক্ষাকতা শুরু করেন। স্বামী মারা যাওয়ার কিছু দিন পর তার সেঝ ভাসুর আমজাদ হোসেন (বড় বোনকে বিয়ে করায় সর্ম্পকে তিনি ভগ্নিপতিও হন) বিভিন্ন সময় তাকে কু-প্রস্তাব দিতে থাকে। প্রস্তাবে রাজী না হওয়ায় তিনি তার পরিবারের উপর অত্যাচার শুরু করে দেন। এক পর্যায় তিনি নলতায় বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকতে শুরু করেন। সেখানে এসেও সে তাকে উত্যাক্ত করতো। আমজাদের অত্যাচারে নিজের সম্ভ্রম রক্ষা করতে স্বামীর মৃত্যুর ১১ বছর পর তিনি দ্বিতীয় বিয়ে করেন। সেই সুযোগে স্বামীর অংশের ৩৫/৪০ বিঘা জমি আমাজাদ নিজে ভোগ দখল শুরু করে। এসময় বাচ্চাদের জোর করে তার কাছ থেকে কেড়ে নিয়ে আটকে রাখে এবং তার ১৫ ভরি স্বর্ণের গহনা এবং জমির হারীর প্রায় ৫ লক্ষ টাকা আমজাদ জমা রাখে। বাঁচ্চাদের কথা চিন্তা করে ৬ মাস পর দ্বিতীয় স্বামীকে তালাক দিয়ে  তিনি আবারও স্বামীর ভিটায় ফিরে আসেন। এ্সময় আমজাদ তাকে বাড়িতে উঠতে বাধা দেয় এবং মেয়েসহ তাকে বেদম মারপিট করে। অনেক সংগ্রামের পরে স্বামীর অংশের ৩৫/৪০ বিঘা জমি থেকে মাত্র ১০ বিঘা জমির হারীর টাকা তিনি গত ১ বছর ধরে পাচ্ছেন। বাকী জমির হারি ভাসুর আমজাদ হোসেন তাকে দিচ্ছে না।
শিক্ষক আনজুমনোয়ারা বেগম অভিযোগ করে বলেন, নিজের ও সন্তানদের অধিকার আদায়ে  আইনের আশ্রয় নিতে গেলে আমজাদের অবৈধ টাকার জোরে উল্টো বিভিন্ন জায়গা থেকে তাকে হেয় প্রতিপন্ন হতে হয়েছে। আইনের আশ্রয় চেয়ে বার বার ব্যর্থ হয়ে তিনি লাঞ্চিত হয়েছেন। তিনি যাতে তার স্বামীর ভিটায় বাচ্চাদের নিয়ে নির্বিঘেœ বসবাস করতে পারেন এবং স্বামীর অংশের পুরো সম্পত্তি ফিরে পেতে পারেন তার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের  আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই