মেইন ম্যেনু

সাংবাদিক শিমুল হত্যায় আ.লীগ নেতাসহ গ্রেপ্তার ৪

দৈনিক সমকালের সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলা প্রতিনিধি আবদুল হাকিম শিমুল হত্যার ঘটনায় এজাহারভুক্ত আসামি আওয়ামী লীগ নেতা নাসিরসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শনিবার ভোররাতে ওই চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

শাহজাদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল হক বিষয়টি জানিয়েছেন। তিনি জানান, আসামিদের আদালতে নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে।

এর আগে গতকাল শুক্রবার রাতে নিহত সাংবাদিকের স্ত্রী কামরুন নাহার বাদী হয়ে মামলা করেন। মামলায় শাহজাদপুর পৌরসভার মেয়র হালিমুল হক মীরু ও তাঁর দুই ভাইসহ ১৮ জনকে আসামি করা হয়।

শাহজাদপুর থানার ওসি জানান, মামলায় পৌর মেয়র হালিমুল হক মীরু, তাঁর দুই ভাই ছাত্রলীগ নেতা হাসিবুল হক পিন্টু এবং পাবনা জেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুল হক মিন্টুকে আসামি করা হয়েছে। এ ছাড়া আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতাদের নাম আসামির তালিকায় রয়েছে।

এরই মধ্যে মেয়রের দুই ভাইকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ছাড়া মেয়রের শর্টগানটি জব্দ করা হয়েছে বলে জানান ওসি।

গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে শাহজাদপুর পৌরসভার মেয়র হালিমুল হক মীরুর ছোট ভাই হাসিবুল হক পিন্টু শাহজাদপুর কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বিজয় মাহমুদকে মারপিট করেন। পরে মেয়রের বাসা থেকে পুলিশ পিন্টুকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

এদিকে বিজয় মাহমুদকে মারপিটের ঘটনার প্রতিবাদে বিকেলে এলাকাবাসী মহাসড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি মেয়রের বাসার সামনে পৌঁছালে কতিপয় লোক মেয়রের বাসা লক্ষ্য করে ঢিল মারে। একপর্যায়ে মেয়র তাঁর ব্যক্তিগত শর্টগান থেকে গুলিবর্ষণ করেন।

এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ, গুলি ও হাতবোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। ঘটনার সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে দৈনিক সমকালের শাহজাদপুর প্রতিনিধি আবদুল হাকিম শিমুলসহ তিনজন গুলিবিদ্ধ হন। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়।

গুরুতর আহত সাংবাদিক শিমুলকে প্রথমে শাহজাদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরবর্তী সময়ে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় গতকাল দুপুরে বগুড়া থেকে ঢাকায় নেওয়ার পথে দুপুর ১টার দিকে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিমপাড় এলাকায় সাংবাদিক শিমুল মারা যান।

এ ঘটনার প্রতিবাদে আজ শনিবার শাহজাদপুরে আধা বেলা হরতালের ডাক দেওয়া হয়েছে।

শাহজাদপুরে এ হরতাল আহ্বান করেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও সাংবাদিক সমাজ।






মন্তব্য চালু নেই