মেইন ম্যেনু

‘সন্ত্রাসী দুঃশাসনের প্রধান মুখপাত্র স্বয়ং সরকার প্রধান’

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘সব দেখে শুনে মনে হয়, এই সন্ত্রাসী দুঃশাসনের প্রধান মুখপাত্র হচ্ছেন স্বয়ং বর্তমান অবৈধ সরকারের প্রধান। তাঁর কাছে অহম ও ক্ষমতালিপ্সা বাংলাদেশের চেয়েও প্রিয়।’

আজ শুক্রবার দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে খালেদা জিয়া এ কথা বলেন। ভোর ছয়টার দিকে রাজধানীর সিদ্ধেশ্বরী রোডের বাসা থেকে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে ডিবি পুলিশ আটক করে। এর পাঁচ ঘণ্টা পর বেলা ১১টায় খালেদা জিয়া এ বিবৃতি দেন। তিনি অবিলম্বে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের মুক্তির দাবি জানান।

বিবৃতিতে খালেদা জিয়া বলেন, বর্তমান ভোটারবিহীন সরকার এখন শেষ মরণকামড় দেওয়ার জন্য বিএনপি নেতা-কর্মীদের ওপর দমন-পীড়নের তীব্রতা বৃদ্ধি করেছে। এর সর্বশেষ বহিঃপ্রকাশ ঘটলো গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে গ্রেপ্তার করার মধ্য দিয়ে।

খালেদা জিয়া বলেন, ‘আমার আদালতে হাজিরাকে কেন্দ্র করে গত ২৪ ডিসেম্বর বকশীবাজার এলাকায় বিএনপি নেতা-কর্মীদের ওপর আওয়ামী সশস্ত্র পান্ডারা যেভাবে পৈশাচিক হামলা করে, তাতে মনে হয় এই অবৈধ সরকার এক বর্বর হিংসাযুদ্ধে লিপ্ত হয়ে পড়েছে। আর এই যুদ্ধে তাঁরা মূলত জনগণকেই প্রতিপক্ষ বানিয়েছে। সব দেখে শুনে মনে হয়, এই সন্ত্রাসী দু:শাসনের প্রধান মুখপাত্র হচ্ছেন স্বয়ং বর্তমান অবৈধ সরকারের প্রধান।’

বিবৃতিতে বিএনপির চেয়ারপারসন সরকারকে হুঁশিয়ার করে বলেন, মিছিলে মিছিলে সংগ্রামী জনগণ এখন শৃঙ্খল ভেঙে এই অবৈধ ক্ষমতাসীনদের ক্ষমতাবিলাসের যবনিকাপাত ঘটাতে ধেয়ে আসছে।

বকশিবাজারের ঘটনা ভিন্নখাতে প্রবাহিত না করে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল আউয়াল মিন্টু, বিএনপির নেতা হাবিব উন নবী খান, আজিজুল বারী, হাবিবুর রশীদ, ছাত্রদল নেতা রাজীব আহসান, আকরামুল হাসান ও ইসাহাক সরকারসহ শতাধিক নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয় বিবৃতিতে।






মন্তব্য চালু নেই