মেইন ম্যেনু

বৌদ্ধ-মুসলিম দাঙ্গার জের

শ্রীলঙ্কার দুই শহরে কারফিউ জারি

শ্রীলঙ্কায় পর্যটনের জন্য বিখ্যাত দুটি উপকূলীয় শহরে রোববার কারফিউ জারি করা হয়েছে। মুসলিম ও বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মধ্যকার দাঙ্গা ঠেকাতে এই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলো সোমবার জানিয়েছে। দাঙ্গায় বেশ কয়েকজন আহত হওয়ারও খবর পাওয়া গেছে।

পুলিশের বরাত দিয়ে আল জাজিরা জানায়, রোববার উপকূলীয় শহর আলুতাগামা এবং বেরুওয়ালায় কারফিউ জারি করা হয়েছে। এর আগে দাঙ্গাকারীদের ঠেকাতে টায়ার গ্যাস ব্যাবহার করে পুলিশ।

সংবাদ সংস্থা এএফপি জানায়, সংঘর্ষ চলাকালে দু পক্ষ পরস্পরকে লক্ষ্য করে পাথর ছুড়ে মারে। শ্রীলঙ্কায় বেশ কিছুদিন ধরেই মুসলিম ও বৌদ্ধদের মধ্যে দাঙ্গা চলছে।

পুলিশের এক মুখপাত্র আল জাজিরাকে জানান, রোববার বৌদ্ধ ভিক্ষুরা মুসলিম অধ্যুষিত বেরুওয়ালার ভিতর দিয়ে শোভাযাত্রা বের করার চেষ্টা চালালে দু পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে শহর দুটিতে কারফিউ জারি করা হয়েছে। দাঙ্গা চলাকালে মুসলমানদের কয়েকটি দোকানে ও বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে বৌদ্ধরা। শ্রীলঙ্কার মুসলিম কাউন্সিলের মুখপাত্র হিলমি আহমেদ আল জাজিরাকে বলেন,‘কিছু বৌদ্ধ জ্ঞাতসারে মুসলিমদের টার্গেট করছে। কিন্তু দু:খের বিষয় পুলিশ তাদের হাত থেকে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে।’

তিনি অভিযোগ করে বলেন,‘চরমপন্থী বৌদ্ধ সংগঠন বোদু বালা সেনার নেতৃত্বে বৌদ্ধরা মুসলিম সম্প্রদায়ের ওপর হামলা চালায়। এখনো এলাকাটিতে কারফিউ বলবৎ রয়েছে।’ এই সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় বেশ কয়েকজন আহত হলেও এ ঘটনায় এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করেুনি পুলিশ।

শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মাহিন্দা রাজাপাকসে এ মুহূর্তে জি-৭৭ সম্মেলনে যোগ দিতে বলিভিয়া রয়েছেন। তিনি বলেছেন, তার সরকার কোন গোষ্ঠিকে আইন নিজের হাতে তুলে নিতে দেবে না। দেশে ফিরে আলুতাগামার দাঙ্গার ঘটনায় তদন্ত এবং দায়িদের শাস্তি দেয়ারও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি।

শ্রীলঙ্কায় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা কোনো নতুন ঘটনা নয়। বৌদ্ধ জনগোষ্ঠির লোকজন প্রায়ই সংখ্যালঘু মুসলমানদের ওপর হামলা চালিয়ে থাকে। কয়েক সপ্তাহ আগে মুসলিম আইনজ্ঞরা প্রেসিডেন্ট রাজাপাকসের কাছে চরমপন্থী বৌদ্ধদের হাত থেকে সংখ্যালঘুদের রক্ষার আবেদন জানিয়েছিলেন।

শ্রীলঙ্কার মোট জনসংখ্যার প্রায় ১০ ভাগ মুসলিম। বদু বালা সেনার মত চরমপন্থী বৌদ্ধ গোষ্ঠিগুলোর অভিযোগ, সংখ্যালঘুরা দেশের রাজনীতি এবং অর্থনীতিতে প্রভাব বিস্তার করছে।






মন্তব্য চালু নেই