মেইন ম্যেনু

শেষ কথাটা বলা হলো না…

বক্তব্য শেষ করে মঞ্চ থেকে নেমে যান প্রখ্যাত চিত্রশিল্পী কাইয়ুম চৌধুরী। কিন্তু কি জানি একটা কথা বলতে ভুলে গেলেন তিনি। তাই আবার মঞ্চে এলেন সেটা বলার জন্য। তখন বক্তব্য দিতে মঞ্চে ছিলেন অধ্যাপক আনিসুজ্জামান।

আনিসুজ্জামানকে গিয়ে বললেন, ‘আমার একটি কথা বলার রয়েছে’। কিন্তু আনিসুজ্জামান তাকে মাইক দেয়ার আগেই তিনি লুটিয়ে পড়লেন বেঙ্গল উৎসবের মঞ্চে। সবাই তখন কায়ুম চৌধুরীকে ধরাধরি করে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যান। ততক্ষণে অবশ্য সময় শেষ। ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ) চিকিৎসকরা জানালেন, তিনি আর নেই।

রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে বেঙ্গল ফাউন্ডেশন আয়োজিত উচ্চাঙ্গ সংগীতের তৃতীয় দিনের অনুষ্ঠান শুরুর আগে রোববার রাতে বক্তব্য পর্বেই তিনি মঞ্চায়ন করে গেলেন জীবন নাটকের শেষ অংকটি।

বাংলাদেশের শিল্পচর্চায় যুগান্তকারী সৃষ্টিশীল মানুষদের মধ্যে অন্যতম কাইয়ুম চৌধুরী। বিশেষ করে প্রচ্ছদ শিল্পে তার অবদান অতুলনীয়। তেলরঙ, জলরঙসহ প্রায় সব মাধ্যমেই তিনি তার মুন্সিয়ানা দেখিয়েছেন।

১৯৩৪ সালের ৯ মার্চ ফেনী জেলায় জন্ম এই শিল্পীর। ক্ষয়িঞ্চু এক জমিদার পরিবারে কাইয়ুম চৌধুরী জন্মগ্রহণ করেন যেখানে অর্থের জৌলুস না থাকলেও শিক্ষা ও উদার মানসের জোরদার অবস্থান ছিল। পরিবারের এক সদস্য আমীনুল ইসলাম চৌধুরী লিখেছিলেন নোয়াখালীর ইতিহাস। বাবা আবদুল কুদ্দুস চৌধুরী ছিলেন সমবায় বিভাগের পরিদর্শক।






মন্তব্য চালু নেই