মেইন ম্যেনু

শিশু হত্যায় বাবাসহ ৫ জনের যাবজ্জীবন

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জে কন্যাশিশু হত্যার দায়ে বাবাসহ পাঁচজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টায় সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ মো. জাফরোল হাসান আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- রায়গঞ্জ উপজেলার সরাইদহ গ্রামের শাহজাহান আলীর ছেলে ও নিহত কন্যা শিশুর বাবা হাবিবুর রহমান হবি, তার ছোট ভাই বিশা সেখ, একই গ্রামের আব্দুস সালামের স্ত্রী বিলকিস বেগম, মাসুদ আলীর ছেলে আয়নাল শেখ এবং তার স্ত্রী মনোয়ারা বেগম।

সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পেশকার আব্দুর রশিদ এ তথ্য নিশ্চিত করে মামলার নথির বরাত দিয়ে জানান, ২০০৪ সালে হাবিবুর রহমান একই গ্রামের ফিরোজা বেগমকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর তাদের ঘরে কাকলী নামে এক কন্যাসন্তানের জন্ম হয়। ফিরোজা বেগমের পরিবার গবিব হওয়ায় স্বামী হাবিবুর রহমান হবি তাকে প্রায়ই নির্যাতন করতেন।

একপর্যায়ে হাবিবুর তার স্ত্রী ফিরোজা বেগমকে তালাক দিলে তিনি তার কন্যাসন্তানকে নিয়ে বাবার বাড়ি চলে যান। কিন্তু হাবিবুর রহমান তার সম্পত্তি থেকে কন্যাসন্তানকে বঞ্চিত করার উদ্দেশ্যে তাকে হত্যার পরিকল্পনা করেন।

এরই একপর্যায়ে ২০১১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর হাবিবুর তার কন্যাসন্তানকে বাড়িতে ডেকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে মরদেহ বাড়িতে রেখে পালিয়ে যান। এ ঘটনায় নিহত শিশু কাকলীর মা ফিরোজা বেগম বাদী হয়ে রায়গঞ্জ থানায় মামলা করেন। মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত সোমবার বিকেলে এ রায় দেন।

মামলার বাদীপক্ষে আইনজীবী ছিলেন সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট আব্দুর রহমান। আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম তালুকদার।






মন্তব্য চালু নেই