মেইন ম্যেনু

নতুন কমিটি গঠনের প্রতিবাদ

রংপুরে ফখরুল অবাঞ্ছিত, দুলুকে জুতাপেটার ঘোষণা

কেন্দ্রে বসে বিএনপির রংপুর জেলা ও মহানগর কমিটি গঠন করে দেয়ার ঘটনার প্রতিবাদে পদবঞ্চিত কয়েক নেতার নেতৃত্বে ছাত্রদল যুবদলের নেতাকর্মীরা নগরীতে ঝাড়ুমিছিল করেছে।
মঙ্গলবার দুপুরে জেলা ও মহানগর কমিটি বাতিলের দাবিতে তারা ঝাড়ুমিছিল নিয়ে রাস্তায় নেমে আসে।
তারা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে রংপুরে অবাঞ্ছিত ও তার আগমন প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়েছে। একই সঙ্গে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা অধ্যক্ষ আসাদুল হাবিব দুলুকে রংপুরে এলেই জুতা পেটাসহ দিগম্বর করার ঘোষণা দিয়েছে ছাত্রদল-যুবদল নেতাকর্মীরা।
সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, সোমবার মির্জা ফকরুল ইসলাম আলমগীরের অনুমোদন করা বিএনপির রংপুর জেলা ও মহানগর কমিটি ঘোষণা করা হয়। মোজাফফর হোসেনকে সভাপতি ও শামসুজ্জামান শামুকে সাধারণ সম্পাদককে ১০১ সদস্যের রংপুর মহানগর কমিটি গঠন করা হয়। একইভাবে এমদাদুল হক ভরসাকে সভাপতি ও সাইফুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক করে ১০১ সদস্য বিশিষ্ট জেলা কমিটি গঠন করা হয়।
ঘোষিত কমিটিতে সভাপতি সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকের মতো গুরুত্বপূর্ণ পদ না পাওয়ায় বিএনপির কয়েকজন নেতা তাদের সমর্থকদের নিয়ে রাতে সংবাদ সম্মেলন করে রংপুর মহানগর ও জেলা বিএনপি কমিটি বাতিল করার দাবি জানান। তারা রংপুর বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক উপমন্ত্রী অধ্যাক্ষ আসাদুল হাবিবকে এ ঘটনায় দায়ী করে তাকে রংপুরে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মমতাজ শিরিন ভরসা। এ সময় বিএনপি নেতা মিজু, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ডন, যুবদল সভাপতি রইছ ছাত্রদলের জেলা সভাপতি নয়ন, সাধারণ সম্পাদক হিজবুলসহ কয়েকজন নেতা উপস্থিত ছিলেন। ওই সম্মেলন থেকে মঙ্গলবার বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।
এদিকে, পুর্ব ঘোষিত কর্মসূচি মোতাবেক পদবঞ্চিতরা তাদের সমর্থকদের নিয়ে নগরীর গ্রান্ড হোটেল মোড়ে বিএনপি কার্যালয়ে সমবেত হয়ে দুপুর ১ টার দিকে রংপুর নগরীতে ঝাড়ুমিছিল বের করে। বিএনপি নেতা মমতাজ শিরিন ভরসা ও মিজুর নেতৃত্বে মিছিলটি নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে নগরীর পায়রা চত্বরে সমাবেশ করে। সেখানে পদবঞ্চিত কয়েকজন বিএনপি ও যুবদল ও ছাত্রদলের নেতা বক্তব্য দেন।
সমাবেশে বিএনপি নেতা শহীদুল ইুসলাম মিজু বলেন, যাদের রংপুর মহানগর ও জেলা বিএনপির সভাপতি সম্পাদকের দায়িত্ব প্রদান করে কমিটি গঠন করা হয়েছে তারা কেউ যোগ্য নয়। মূলত লালমনিরহাট জেলার অধিবাসী বিএনপি নেতা দুলু টাকা খেয়ে অযোগ্য ব্যক্তিদের দিয়ে কমিটি করিয়েছেন। তিনি দুলুকে সংস্কারবাদী আখ্যায়িত করে তাকে রংপুরে পেলেই জুতা পেটা করার ঘোষণা দেন। সেই সঙ্গে তিনি কমিটি বাতিল না করা পর্যন্ত রংপুরে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ই্সলাম আলমগীরসহ কোনো কেন্দ্রীয় নেতাকে ঢুকতে দেয়া হবে না বলেও ঘোষণা দেন।
জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মমতাজ শিরিন ভরসা মির্জা ফখরুলকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে বলেন, ‘তাকে শুধু রংপুরে নয় রংপুরের ওপর দিয়ে তার বাড়ি ঠাকুরগাঁওয়ে যেতে দেয়া হবেনা। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কমিটি বাতিল করার ঘোষণা না দিলে বৃহস্পতিবার রংপুর প্রেসক্লাব চত্বরে অবস্থান ধর্মঘট করার কর্মসূচি ঘোষণাও দেন শিরিন ভরসা।
সমাবেশে ছাত্রদল নেতা ডন ও যুবদল নেতা রইছ বক্তব্য দেয়ার সময় বিএনপি নেতা দুলুকে দিগম্বর ও জুতা পেটা করে রংপুর থেকে বিতাড়িত করার ঘোষণা দেন। পরে বিএনপি নেতা দুলুর কুশপুতুল পোড়ায় বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। সমাবেশ চলাকালে অনেক নেতাকর্মী স্থান ত্যাগ করে। পরে শতাধিক নেতাকর্মী নিয়ে মিছিল করে চলে যান নেতারা।

এ ব্যাপারে নব গঠিত বিএনপির রংপুর মহানগরী কমিটির সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান শামু জানান, যারা সমাবেশ করেছে তাদের সবাই নব গঠিত কমিটিতে ভালো পদ পেয়েছেন। মমতাজ শিরিন ভরসা সহসভাপতি হয়েছেন, মিজু মহানগর বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদ পেয়েছেন। একই ভাবে যুবদল সভাপতি রইছ যুগ্ম সম্পাদক পদ পেয়েছেন।

শামু বলেন, ‘দল যাকে যোগ্য মনে করেছে তাদের নিজ নিজ যোগ্যতার ভিত্তিতে পদ দিয়েছে। এখানে কোনো পক্ষপতিত্ব করার প্রশ্নই ওঠেনা। তিনি দাবি করেন, নেতাকর্মীরা নতুন কমিটিকে স্বাগত জানিয়েছে। রংপুরের বিভিন্ন এলাকায় আনন্দ মিছিল হয়েছে । মিষ্টি বিতরণ করেছে তারা।






মন্তব্য চালু নেই