মেইন ম্যেনু

যে ৫ টি বাজে অভ্যাসই আপনার দাঁত নষ্টের মূল কারণ

কথায় বলে দাঁত থাকতে দাঁতের মর্ম কেউ বোঝে না। কথাটি আসলে সত্যি। যখন দাঁত ভালো থাকে তখন দাঁতের প্রতি যত্ন নেয়ার কথা কেউ ভাবেন না। নিয়ম মতো দাঁত ব্রাশ না করা, দাঁত পরিষ্কার না করা, চেকআপ না করা এগুলো বেশ খারাপ অভ্যাস। এছাড়াও এমন কিছু বাজে অভ্যাস আমরা রপ্ত করে নিয়েছি যা দাঁত নষ্টের মূল কারণ। এই কাজগুলো অনেকেই না জেনে করে থাকেন এবং পরবর্তীতে দাঁতের সমস্যায় পড়ে যান। সুতরাং সাবধান থাকা শুরু করুন এখন থেকেই।

১) দাঁত দিয়ে বিভিন্ন কাজ করা যেমন দাঁতে কামড়ে আটকে যাওয়া কোনো কিছুর ঢাকনা খোলা, বোতলের মুখ খোলা, প্যাকেট খোলা ইত্যাদি কাজ অনেকেই করে থাকেন। কিন্তু এতে করে আপনার দাঁতের অনেক ক্ষতি হচ্ছে। ডঃ ইউয়ান সোয়ান বলেন এই কাজে দাঁতে ফ্রাকচারের সম্ভাবনা বাড়ে। সুতরাং, সাবধান।

২) মুখে বরফ নিয়ে খাওয়া বা চুষে খাওয়ার মতো বাজে অভ্যাস রয়েছে অনেকেরই। কিন্তু এই অভ্যাসটির কারণে দাঁতের এনামেল ক্ষয় এবং দাঁতের কোণা ভাঙার মতো সমস্যায় পড়ে যান অনেকেই। তাই মুখে বরফ নিয়ে খাবেন না কখনোই।

৩) লজেন্স বা চুষে খাওয়ার মতো চকলেট খাওয়া দাঁতের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। আপনি যদি গলা খুসখুসে ভাবের জন্য ঔষধি ধরণের লজেন্স খান তাও ক্ষতিকর। কারণ এতে করে অনেকটা সময় দাঁত চিনির সংস্পর্শে থাকে যার ফলে দাঁতের ক্ষয় হয় খুব সহজেই।

৪) অনেকেই তাৎক্ষণিক ভাবে দাঁত সাদা করার জন্য বেকিং পাউডার বা লেবুর রস ব্যবহার করেন যা দাঁতের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। এভাবে দাঁত ব্লিচ করতে থাকলে দাঁতের উপরের প্রতিরক্ষা এনামেল একেবারে ক্ষয়ে যাবে এবং দাঁতের নার্ভ অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যায়।

৫) অ্যাসিডিক খাবার যেমন কমলা, কমলার রস, লেবু সহ অন্যান্য যেসকল খাবারে অ্যাসিডের মাত্রা বেশি সেসকল খাবার খাওয়ার পরপরই যদি দাঁত ব্রাশ করে ফেলেন তাহলে তা দাঁতের ক্ষয়ের জন্য দায়ী। কারণ এইধরনের অ্যাসিডিক খাবার দাঁতের এনামেল নরম করে ফেলে যা তাৎক্ষণিক ব্রাশের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অ্যাসিডিক খাবার খাওয়ার কমপক্ষে ৩০ মিনিট থেকে ১ ঘণ্টা পর দাঁত ব্রাশ করুন।

সূত্রঃ হেলথ ডাইজেস্ট






মন্তব্য চালু নেই