মেইন ম্যেনু

যেমন হবে ঢাকার মেট্রোরেল

সব গুঞ্জনের অবসান ঘটিয়ে অবশেষে ঢাকায় মেট্রোরেলের প্রস্তাবিত নকশা প্রতিযোগিতার ফল প্রকাশ হয়েছে। ঢাকা মেট্রোরেল ট্রানজিট অথরিটি মেট্রোরেলের জন্য পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের আর্কিটেক্ট ফার্মগুলোর কাছ থেকে নকশা আহ্বানের মাধ্যমে একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। বুধবার প্রতিযোগিতার ফলাফল প্রকাশিত হলে জানা যায়, স্বনামধম্য ব্রিটিশ প্রতিষ্ঠান জন ম্যাকআসলান পার্টনারস সংক্ষেপে জেএমপির করা নকশা সেরা হিসেবে বিবেচিত হয়েছে।

এ উপরক্ষে বিজয়ী প্রতিষ্ঠানটি তাদের ওয়েবসাইটে মেট্রোরেলের জন্য প্রস্তাবিত খসড়া নকশার দুটি ছবি প্রকাশ করেছে। সেখানে একটি ছবিতে দেখা যায়, মেট্রোরেলের প্লাটফর্মে আমাদের দেশীয় পোশাক পরে কয়েকজন নারী হেঁটে যাচ্ছেন। তাদের মাথার উপরে একটি সাইনবোর্ডে লেখা প্লাটফর্ম নম্বর-২। মূল রেল লাইনটির দুই পাশে প্লাটফর্ম বরাবর নিরাপত্তার জন্য শক্ত গ্লাস দিindexয়ে মোড়া।

দ্বিতীয় ছবিতে দেখা যায়, মেট্রো স্টেশনে যাত্রীদের অনায়াস ওঠানামা নিশ্চিত করতে ছিমছাম ও সর্বাধুনিক দুটি এলিভেটর মেট্রোলাইনের দুই পাশে থেকে দুদিকে নেমে গেছে। সিঁড়িতে দেখা যাচ্ছে সালোয়ার কামিজ পরিহিতা, ওড়না দিয়ে ঘোমটা দেয়া এ দেশীয় নারীর ছবি। আশপাশে শার্ট প্যান্ট বা সোয়েটার পরিহিত পুরুষরাও রয়েছেন। মাথার ওপরে মেট্রোরেল স্টেশন, নিচ দিয়ে হাইওয়ে ধরে চলে যাচ্ছে বিলাসবহুল চেয়ার কোচ, প্রাইভেট কার ও ফুটপাথ দিয়ে পথচারী।

এই ডিজাইনের সবচেয়ে আকর্ষণীয় দিক হচ্ছে প্লাটফর্মের ছাদ। অত্যন্ত দৃষ্টিনন্দন-সুউচ্চ ছাদের দিকে তাকালে দেখা যাবে, ধবধবে সাদা রংয়ের দুটি বিশেষ ধরনের জ্যামিতিক প্যাটার্নওয়ালা ধনুকাকৃতির খিলান দুদিক থেকে সরলরৈখিকভাবে একে অপরকে ভেদ করে চলে গেছে। তার মাঝে কয়েক জায়গায় ট্রান্সপারেন্ট গ্লাস দেয়া যাতে করে সূর্যের আলো প্রবেশ করে উভয় পাশের প্লাটফর্ম আলোয় ভরিয়ে দিতে পারে।

নকশায় সর্বমোট ১৬ টি স্টেশন রয়েছে। একটা নির্দিষ্ট থিমের আউটলুক বজায় রাখতে সবগুলো স্টেশনই একই নকশায় করা হবে। শুধু তাই নয়, এর মধ্যে একটি ট্রেন ডিপোর ডিজাইনও প্রতিষ্ঠানটি করেছে। মেট্রোরেল প্রকল্পের জন্য আনুমানিক ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ২৪ হাজার কোটি টাকা। এটি রাজধানীর উত্তরা থেকে শুরু হয়ে মতিঝিল এসে শেষ হবে। এই প্রকল্প শেষ হবার জন্য সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে ২০২১ সাল পর্যন্ত। এবং ধারণা করা হচ্ছে, মেট্রোরেলের মাধ্যমে প্রতিদিন গড়ে সাড়ে ৫ লাখ লোক যাতায়াত করবেন।

মেট্রোরেলের রুট হচ্ছে উত্তরা থেকে পল্লবী হয়ে মিরপুর ১০ ও ১১, শ্যাওড়াপাড়া কাজীপাড়া হয়ে আগারগাঁও, বিজয় স্মরণী, ফার্মগেট, কারওয়ানবাজার থেকে টিএসসি পার হয়ে প্রেস ক্লাব হয়ে মতিঝিল পর্যন্ত। এর দৈর্ঘ্য প্রায় ২০ কিলোমিটার। নির্মাণ কাজের সুবিধার্থে পুরো প্রকল্পটিকে ৩ ভাগে ভাগ করা হয়েছে। প্রাথকিমকভাবে মনোনীত হবার পর ম্যাকআসলান এবার নকশার চূড়ান্তকরণ কাজ index2শুরু করবে।

জেএমপি অভূতপূর্ব স্থাপত্য নকশার জন্য গত কয়েক দশক থেকেই জনপ্রিয়। নিজেদের দেশে তারা বেশি কাজ করলেও মধ্যপ্রাচ্য আর রাশিয়াতেও তাদের বেশ কয়েকটি প্রজেক্ট রয়েছে। উল্লেখ্য, নয়াদিল্লীর আনন্দ বিহার ট্রান্সপোর্ট হাব ও ইংল্যান্ডের ঐতিহাসিক কিংস ক্রস পাতাল রেলস্টেশনের নকশা তাদেরই করা।

তথ্যসূত্র :
http://www.dezeen.com/2014/10/29/john-mcaslan-partners-first-metro-line-dhaka-bangladesh/
http://www.railjournal.com/index.php/metros/dhaka-metro-station-design-contract-awarded.html?channel=542
http://www.theneeds.com/read/n5734411/dhakas-first-metro-line-will-be-designed-dezeen






মন্তব্য চালু নেই