মেইন ম্যেনু

যুদ্ধে, সামরিক পোশাকে নারী

এক শতাব্দী আগেও সামরিক পোশাকে নারীকে তেমন দেখা যেত না। নারীরা তখন যুদ্ধাহত সৈনিকদের চিকিৎসা অথবা সেবা করত। কিন্তু এখন নারীরা সম্মুখযুদ্ধে অংশ নিচ্ছে, যুদ্ধবিমান চালিয়ে শত্রুপক্ষের ওপর আক্রমণ চালাচ্ছে, জটিল চিকিৎসা-অপারেশন তত্ত্বাবধান করছে। যদিও সরাসরি যুদ্ধে অংশ নেওয়া নারী সৈনিকের সংখ্যা পুরুষের তুলনায় এখনো নগণ্য।

১৮৬১ সালের আমেরিকান সিভিল ওয়ারে স্বল্পসংখ্যক নারীকে সামরিক পোশাক পরে যুদ্ধে অংশ নিতে দেখা যায়। ১৯৭০-এর দশক থেকে পশ্চিমা দেশের সামরিক বাহিনীর সব শাখায় নারীদের নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।

১৯১৪ সাল থেকে শুরু হওয়া প্রথম বিশ্বযুদ্ধে যুদ্ধাহত সৈনিকদের সেবা এবং সামরিক বাহিনীর বিভিন্ন কাজে হাজার হাজার নারী নিযুক্ত হয়। রাশিয়া সেই সময় উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নারীকে সম্মুখযুদ্ধের জন্য নিয়োগ দেয়। যুদ্ধক্ষেত্রে এক নারী কর্নেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

index

যুদ্ধক্ষেত্রে পোলিশ নারী

১৯৩৯ সাল থেকে শুরু হয় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। এতে অংশ নেওয়া অধিকাংশ দেশের নারী সৈনিকদের সামরিক পোশাক পরে যুদ্ধক্ষেত্রে দেখা যায়। আহত সৈনিকদের সেবা, চিকিৎসা এবং অন্যান্য সহযোগিতায় তাদের অবদান ছিল ব্যাপক। প্রায় ৫ লাখ নারী সৈনিককে ব্রিটেনে, জার্মানিতে শত্রু বিমান আক্রমণ প্রতিরোধী ইউনিটে এবং রাশিয়ায় ফ্রন্ট লাইন ইউনিটে দেখা যায়।

সাবমেরিনে নারী সৈনিক

১৯৮৫ সালে বিশ্বে প্রথম নরওয়ের ডুবোজাহাজে নারী সৈনিক নিয়োগ দেওয়া হয়। এর ধারাবাহিকতায় ১৯৯৫ সালে সাবমেরিনে একজন নারী ক্যাপ্টেন নিযুক্ত হন। এরপর ১৯৮৮ সালে ডেনমার্ক, ১৯৮৯ সালে সুইডেন, ১৯৯৮ সালে অস্ট্রেলিয়া, ২০০০ সালে কানাডা এবং স্পেন সাবমেরিনে নারী সৈনিক নিয়োগ দেয়।

index11

ব্রিটিশ নারী সেনা

ব্রিটেন

অনেক আগে থেকে ব্রিটেনের সামরিক বাহিনীতে নারী অংশ নিচ্ছে। প্রথম দিকে তা ছিল শুধু সেবিকা হিসেবে। ১৯৩৮ সালে ২০ হাজার নারীর একটি ইউনিট যুদ্ধের সময়ের জন্য সামরিক পুলিশ এবং শত্রু বিমান প্রতিরোধী সৈনিক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। ১৯৪৯ সাল থেকে দেশটির সামরিক বাহিনীতে নারীদের নিয়োগ স্থায়ী করা হয়। তখনো সম্মুখযুদ্ধে তাদের অংশ নেওয়ার ব্যাপারে বিধিনিষেধ ছিল। তাদের অধিকাংশের সামরিক বাহিনীর কারখানায় এবং স্বল্পসংখ্যক নারী সেনা মূল বাহিনীর সঙ্গে যুক্ত হয়। এখন দেশটির সামরিক সদস্যদের প্রায় ৯ শতাংশ নারী।

22

যুদ্ধক্ষেত্রে জার্মান নারী

জার্মানি

১৯৪৪-১৯৪৫ সালে পাঁচ লক্ষাধিক সাদা পোশাকের জার্মান নারী সৈনিক স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে সামরিক বাহিনীকে সহযোগিতা করে। তারা বিমান প্রতিরক্ষা, সেবিকা এবং যুদ্ধকালীন অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে অংশ নেয়। তাদের কিছু সদস্য শত্রুপক্ষের বিমান আক্রমণ প্রতিহত করতে সম্মুখযুদ্ধে অংশ নেন। ১৯৪৫ সাল পর্যন্ত জার্মানির সামরিক বাহিনীর দাপ্তরিক, হিসাবরক্ষণ, দোভাষী, ল্যাবরেটরি কর্মী এবং প্রশাসনিক কাজের ব্যাপকসংখ্যক নারীরা নিয়োজিত ছিল। ২০০১ সালে সেনাবাহিনীর সব পদ নারীর জন্য উন্মুক্ত হয়। ২০১৩ সালে সেনাবাহিনীতে ১৮ হাজার নারী সদস্য ছিল। যা মোট সেনাসদস্যদের ১০ শতাংশ।

ইসরাইল

পৃথিবীতে ইসরাইলই একমাত্র দেশ, যেখানে নারীদের সামরিক প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক। ১৮ বছর পূর্ণ হওয়ার পর নারীদের প্রশিক্ষণ নিতে হয়। সামরিক বাহিনীর দাপ্তরিক কাজ, গাড়ি চালানো, সৈনিকদের জন্য কল্যাণমূলক কাজ, সেবিকা, সেনাবাহিনীর রেডিও অপারেটর, ফ্লাইট নিয়ন্ত্রক এবং প্রশিক্ষক হিসেবে কাজ করতে হয়। প্রযুক্তিগত এবং দাপ্তরিক কাজে সেনা বাহিনীতে নারীদের নিয়োগ শুরু হয় ১৯৭০-এর দশক থেকে। সামরিক বাহিনীতে নারীরা শারীরিক এবং মানসিক সক্ষমতা দেখাতে পারায় ২০০০ সালে সামরিক আইন সংশোধন করে নারীদের জন্য সমান সুবিধার বিধান করা হয়। নারীরা পুরুষ সেনাদের পাশাপাশি সম্মুখযুদ্ধে কামান ইউনিট, পদাতিক বাহিনীত এবং সাঁজোয়া বিভাগে অংশ নেয়। অনেক নারী সীমান্ত বাহিনীতে যোগ দেন। সর্বসাম্প্রতিক পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ইসরাইলের প্রতিরক্ষা বাহিনীতে ৩১ শতাংশই নারী। এই সংখ্যা ব্রিটেনের তিন গুণ।

3333

সামরিক পোশাকে গ্রিক নারী

যুক্তরাষ্ট্র

১৭৭৫ সালে মার্কিন সামরিক বাহিনীতে নারীদের প্রথম নিয়োগ দেওয়া হয়। তখন নারীরা সেবিকা, পোশাক তৈরি এবং রান্নার কাজ করতেন। ১৯১৭ সালে নারীরা প্রথম তালিকাভুক্ত সৈনিক হন। আর ১৯৪৮ সালে চূড়ান্তভাবে আইন প্রণয়ন হওয়ার পর নারী সামরিক বাহিনীর স্থায়ী অংশ হয়। এখন সামরিক বাহিনীর সব পদই নারীর জন্য উন্মুক্ত। ২০১২ সালের এক পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, মার্কিন সামরিক বাহিনীর সদস্যদের ১৪ শতাংশ নারী। ১ লাখ ৬৫ হাজার নারী সদস্যের মধ্যে ৩৫ হাজার সদস্য কর্মকর্তা পর্যায়ের। লেফটেন্যান্ড জেনারেল বা মেজর জেনারেল পদেও নারীরা দায়িত্ব পালন করেছেন।

44

সামরিক পোশাকে পাকিস্তানি নারী

পাকিস্তান

মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে একমাত্র পাকিস্তানের নারীদের সামরিক বাহিনীর উচ্চপদে নিয়োগ দেওয়া হয়। তারা আকাশপথে সম্মুখযুদ্ধে অংশ নিতে পারে। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর থেকে নারীরা সামরিক বাহিনীতে অংশ নেওয়ার সুযোগ পায়। ২০০৬ সালে পাকিস্তানের প্রথম নারী বৈমানিকেরা সম্মুখ অভিযানে অংশ নেয়। নারী সৈনিকদের আকাশপথে সম্মুখ অভিযান, স্নাইপার, আকাশ থেকে আক্রমণ এবং পদাতিক বাহিনীতে অংশ নেওয়ার প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নারী সামরিক বাহিনীতে নিযুক্ত রয়েছে।

চীন ও রাশিয়া

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সামরিক বাহিনী চীনের। দেশটির সৈন্য সংখ্যা প্রায় ২২ লাখ ৮৫ হাজার। এই সৈন্য সংখ্যার প্রায় ৭ দশমিক ৫ শতাংশ হলো নারী। দেশটির জন সংখ্যার প্রায় দশমিক ১৮ শতাংশ সামরিক বাহিনীতে নিযুক্ত। এক পরিসংখ্যান থেকে দেখা যায়, রাশিয়ার সামরিক বাহিনীতে ১ লাখ ১৫ হাজার থেকে ১ লাখ ৬০ হাজার নারী সদস্য রয়েছে, যা দেশটির সামরিক শক্তির ১০ শতাংশ।

তুরস্ক

তুরস্কের নারীরা একসময় মূল প্রতিরক্ষা বাহিনীর সহযোগিতায় স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করত। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে যুদ্ধাহতদের সেবা করার পাশাপাশি সৈনিকদের সহযোগিতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এখন তুর্কি সামরিক বাহিনীতে নারীদের কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। বর্ম, পদাতিক এবং সাবমেরিন ইউনিট ছাড়া সকল শাখায় নারী কর্মকর্তারা অংশ নিতে পারে। ২০০৫ সালে সেখানে ১২৪৫ জন নারী কর্মকর্তা নিযুক্ত ছিল।

5555

সামরিক বাহিনীতে নিযুক্ত হচ্ছেন বাংলাদেশি নারীরাও

এ ছাড়া ইরিত্রিয়া, লিবিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, জাম্বিয়া, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, নেপাল, নিউজিল্যান্ড, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড, ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, আয়ারল্যান্ড, নরওয়ে, পোল্যান্ড, সার্বিয়া, সুইডেন, কানাডা, আর্জেন্টিনা, বাংলাদেশসহ বহু দেশের সামরিক বাহিনীতে নারীরা নিযুক্ত আছে।






মন্তব্য চালু নেই