মেইন ম্যেনু

যশোর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১৬

যশোর অফিস : যশোর-বেনাপোল মহাসড়কে যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে ১০ জন নিহত ও অন্তত ১৬ জন আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার সকাল ৭টার দিকে ঝিকরগাছার গদখালি বাজারের আগে রজনীগন্ধা তেলপাম্পের পাশে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ১০ জনের মধ্যে সাত জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন- ঢাকার ডেমরা এলাকার বজলুর রহমানের ছেলে জামান (৪০), বিদ্যুৎ ঘোষ (৪৫), মুন্সীগঞ্জ জেলার চুঙ্গীবাড়ী এলাকার সালাম (৩০), শরীয়তপুর জেলার গোয়াখোলা এলাকার রণজিৎ পালের ছেলে প্রসেনজিৎ পাল (৩৪) ও ঢাকার ধোলাইখালির রজমান আলী (৩৫) ও ঢাকার নির্মল চন্দ্র সাহা (৫৫), হেনা সাহা (৪০)।

ঝিকরগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ হোসেন জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা সোহাগ পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস (ঢাকা মেট্রো-ব- ১৪-৩৮৯০) বেনাপোল যাচ্ছিল। পথে ঝিকরগাছার গদখালি এলাকায় পৌঁছালে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে গাছের সঙ্গে ধাক্কা খায়। এতে বাসটি দুমড়ে-মুচড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলেই ছয় জন নিহত হন। পরে ঝিকরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আরও ৪ জন মারা যান।

পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে হতাহতদের উদ্ধার প্রক্রিয়া শুরু করেন। এ ঘটনায় ঢাকার ৬৭/১ উত্তর গোলাপবাগ এলাকার ঝন্টু (৩৫), ঢাকার নবাবগঞ্জ এলাকার রূপলাল সাহার ছেলে হরিদাস সাহা (৫৫), বিক্রমপুর এলাকার সুমন (৩০), রাকিব (৩০), জনি ঘোষ (৩৫), রণজিৎ সরকার (৩৫),গীতালী ঘোষ (৪৫), রুবি (৩০), ময়না (৩৫), ওয়ালিদসহ (৩০) অন্তত ১৬ জন আহত হয়েছেন। আহতরা ঝিকরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে জানান তিনি।

## ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রাকচাপায় অটোরিকশার ৬ যাত্রী নিহত
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে ট্রাক চাপায় অটোরিকশার ছয় যাত্রী নিহত হয়েছে। দুর্ঘটনার শিকার অটোরিকশাটি দুমড়ে মুচড়ে গেছে।

মঙ্গলবার বিকেল সোয়া ৩টার দিকে উপজেলার বেড়তলা বাসস্ট্যান্ডের কাছে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

হাতিহাতা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সার্জেন্ট নূর হায়দার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, বিকেলে ছয়জন যাত্রী নিয়ে অটোরিকশাটি ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ধরে যাচ্ছিল। বেড়তলা বাসস্ট্যান্ডের কাছে পৌঁছলে দ্রুতগামী একটি ট্রাক অটোরিকশাকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলে দুইজন মারা যায়। আহত হয় চারজন। তাদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়।






মন্তব্য চালু নেই