মেইন ম্যেনু

যখন খুশি তখন বিয়ে যে দেশে

‘ওঠ ছেরি তোর বিয়ে” এই প্রবাদটি আমাদের দেশে যেমনটা সচরাচর ব্যবহৃত হয় তেমনিভাবে এর প্রয়োগ ও যথারীতি ঘটে থাকে। আমাদের এখনে আমরা যখন খুশি বিয়ে করতে পারি। দিনে বা রাতে, সকালে বা সনধ্যায় যখনই হোক। বিয়ে করা বা না করা একান্ত দুটি মানুষের ইচ্ছা অনিছার ব্যাপার। অন্ধকার নেমে আসার পর বিয়ে করা যাবে না, এমন কোন নিয়ম আমাদের দেশে নেই। বিয়ে করা আমাদের দেশে খুব সহজ হলেও কিন্তু ব্রিটিশদের জন্য তা এতটা সহজ নয়। কারণ তারা তো আর আমাদের নিয়ম এ চলে না।

বিয়ের জন্য তাদের যে আইন প্রচলিত আছে, তাতে সনধা হবার আগে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করতে হবে। ১৭৬ বছর ধরে এই আইন ব্রিটিশ সমাজে প্রচলিত ছিল। এতো দিন সেই আইনে ব্রিটিশদের কেবল দিনের আলোতেই বিয়ে করতে হতো। মন চাইলেই তারা রাতে বিয়ে করতে পারত না।

বিয়ে করার জন্য সকাল আটটা থেকে সনধা ছয়টা পর্যন্ত সময় নির্দিষ্ট ছিল। রাতের বেলা বিয়ে করা নিযেধ ছিল ব্রিটিশ আইনে। এক বছর আগে ব্রিটিশরা এই আইনের সংস্কার এনেছে। সরাষ্ট মন্ত্রণালয় তাদের চলতি আইনের সংস্কারের উদ্ধ্যোগ গ্রহণ করেন। তবে এজন্য তারা সাধারণ জনগনের মতামত নিয়েছে। এরপর তারা তাদের পুরোনো আইন বিলুপ্ত করে নতুন আইন তৈরি করেছে।

এখন থেকে ব্রিটিশদের বিয়ে করার ক্ষেত্রে আর কোন সময়ের নির্দিষ্টতা থাকল না। এখন থেকে তারা যখন খুশি সপ্তাহে সাত দিনের চব্বিশ ঘণ্টার যেকোন সময় বিয়ে করতে পারবে।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই