মেইন ম্যেনু

মৃত্যুরহস্য ভিন্নখাতে নেয়ার চেষ্টা

ডাক্তার শামারুখ মাহজাবিনের মৃত্যুরহস্য উদঘাটনের আগেই ঘটনা ভিন্নখাতে নেয়ার চেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ করেছেন স্বজনরা। একই সঙ্গে শামারুখের পরিবারকে পরোক্ষভাবে নানাভাবে হুমকি দেয়া হচ্ছে। শামারুখের শ্বশুর সাবেক এমপি খান টিপু সুলতান রাজনৈতিক লবির মাধ্যমে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে।

এদিকে শামারুখ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার তার স্বামী হুমায়ুন সুলতানকে রিমান্ডের নামে থানায় জামাই আদরে রাখা হয়েছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শামারুখ মাহজাবিনের ভাই শাহানুর শরিফ আশঙ্কা করে সাংবাদিকদের বলেন, বোনের এই নির্মম মৃত্যুর ঘটনাকে খান টিপু সুলতান পরিবার ভিন্নখাতেনেয়ার জোর চেষ্টা চালাচ্ছে। টিপু সুলতান পুলিশকে প্রভাবিত করছে। পোস্টমর্টেম প্রতিবেদনের ব্যাপারেও ডাক্তারদের ওপর নানা চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। একই সঙ্গে পরোক্ষভাবে তাদের ওপর নানা হুমকি আসছে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, শামারুখের মৃত্যুর আলামত ইতোমধ্যে নষ্ট করে ফেলা হয়েছে। শামারুখ মারা যাওয়ার পর পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে কোনো আলামত সংগ্রহ করতে পারেনি। শামারুখের ডায়েরি নিয়েও বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে আমাদের মা মারা যাওয়ার পর দুই ভাই-বোন বাবাকে নিয়ে অসহায় হয়ে পড়েন। শামারুখ ছোট হলেও সে আমাদের আগলে রেখেছে। শামারুখ তখন মাকে উদ্দেশ্য করে ডায়েরিতে কিছু কথা লিখতো। কিন্তু সেই ডায়েরির কথাগুলো নিয়ে খান টিপু সুলতান ও তার পরিবারের লোকজন ভিন্নভাবে ব্যাখ্যা করছে।’

স্বজনদের অভিযোগ, বিয়ের পর থেকে শামারুখকে বিভিন্ন অজুহাতে খান টিপু সুলতান ও তার স্ত্রী নির্যাতন করছিলেন।
শামারুখের বাবা নুরুল ইসলামের অভিযোগ, খান টিপু সুলতান, তার স্ত্রী জেসমিন আরা ও ছেলে হুমায়ুন সুলতান পরস্পর যোগসাজশে পরিকল্পিতভাবে শামারখককে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছেন। মামলার পর থেকেই খান টিপু সুলতানের পক্ষ থেকে নানাভাবে তাকে ও আত্মীয়-স্বজনকে হুমকি দেয়া হচ্ছে।

এদিকে রিমান্ডে শামারুখের স্বামী হুমায়ুন সুলতান মুখ খুলছেন না বলে দাবি পুলিশের। মৃত্যুরহস্য উদঘাটনের জন্য পুলিশ তাকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ধানমণ্ডি থানার এসআই কাজী শরীফুল ইসলাম জানান, হুমায়ুন সুলতানকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে শামারুখের মৃত্যুর বিষয় এখনো মুখ খোলেনি। বারবারই হুমায়ুন দাবি করছেন, তার স্ত্রী আত্মহত্যা করেছেন। বুধবার তার রিমান্ড শেষ হবে।

গত ১৩ নভেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুরে শ্বশুর খান টিপু সুলতানের ধানমণ্ডির বাসায় শামারুখের রহস্যজনক মৃত্যু হয়। সংজ্ঞাহীন অবস্থায় তাকে তার শাশুড়ি সেন্ট্রাল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। শামারুখের গলায় নীল জখম ও হাতে কাটা চিহৃ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন ময়না তদন্তকারী চিকিৎসা কর্মকর্তা।

এ ঘটনায় মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে শ্বাসরোধ করে হত্যা করার অভিযোগ এনে ওই রাতেই শামারুখের বাবা নুরুল ইসলাম ধানমন্ডি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় শামারুখের স্বামী হুমায়ুন সুলতান, শ্বশুর আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য খান টিপু সুলতান ও শাশুড়ি ডাক্তার জেসমিন আরাকে আসামি করা হয়েছে। ওই দিন রাতে পুলিশ হুমায়ুন সুলতানকে গ্রেপ্তার করে। টিপু সুলতান স্ত্রীকে নিয়ে আত্মগোপন করলেও পরে উচ্চ আদালত থেকে আগাম জামিন পেয়েছেন।






মন্তব্য চালু নেই