মেইন ম্যেনু

মিশরের চেয়ে বেশি পিরামিড সুদানে!

পিরামিডের দেশ বলতেই মাথায় ঝিলিক দেয় একটাই নাম- মিশর। কিন্তু প্রত্নতত্ত্ব জানাচ্ছে, মিশরই একমাত্র পিরামিড-নির্মাণকারী দেশ নয়। মেক্সিকোর মতো দেশেও পিরামিড রয়েছে, যদিও তার চরিত্র মিশরের পিরামিডের চাইতে আলাদা। কিন্তু এমন এক দেশ আফ্রিকাতেই আছে, যার নাম অনায়াসেই হতে পারতো ‘পিরামিড-ভূমি’। কারণ সে দেশের পিরামিড-সংখ্যা মিশরের চাইতে ঢের বেশি। নীলনদের অববাহিকায় মিশরের পাশের দেশটি সুদান। প্রাচীন কালে এখানে মিশরের কুশাইট বংশের শাসন প্রতিষ্ঠিত হয়। নীলনদের অববাহিকার যে অঞ্চলটি ‘নুবিয়া’ নামে পরিচিত, সেই ব্লুনীল, হোয়াইট নীল এবং আটবারা নদের সঙ্গমেই ১০০০ থেকে ৩০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দের মধ্যে গড়ে ওঠে এই সভ্যতা। প্রথম দিকে নুবিয়ান সভ্যতার সমাধি প্রথা অন্যরকম হলেও, পরে তা মিশরের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে পড়ে। এবং নির্মিত হতে শুরু করে পিরামিড।

এই এলাকায় এখনও পর্যন্ত ২৫৫টি পিরামিডের অস্তিত্বের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। প্রাচীন শহর নাপাতা ও মেরো-র কাছে এই পিরামিডগুলির অধিকাংশ অবস্থিত। রাজা বা রানির সম্পর্ক হিসেবে এখানে বেশ কিছু পিরামিড নির্মিত হলেও, বেশিরভাগ পিরামিড বীর যোদ্ধাদের সমাধি। তবে সবথেকে বিখ্যাত পিরামিডটি মেরো-য় অবস্থিত। এর নীচে প্রায় ৪০জন রাজা ও রানির সমাধি রয়েছে। মিশরের পিরামিডের তুলনায় সুদানের পিরামিডগুলি আকারে ছোট। কিন্তু অবশ্যই সংখ্যার দিক থেকে তারা মিশরের চাইতে অনেক বেশি। সূত্র: এবেলা।






মন্তব্য চালু নেই