মেইন ম্যেনু

মিঠাপুকুরে পেট্রোল বোমা ট্রাজেডির ৩ বছর পূর্তি আজ

মো: শামীম আখতার, উপজেলা প্রতিনিধি, মিঠাপুকুর (রংপুর): ২০১৪ সালের ১৪ জানুয়ারী রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের মিঠাপুকুরের জায়গীর ফতেপুর নামক স্থানে যাত্রীবাহী নৈশ কোচে পেট্রোল বোমা হামলায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে প্রাণ হারিয়েছিল ৬ জন নিরীহ যাত্রী। দেশব্যাপি আলোচিত এই বর্বোরোচিত পেট্রোল বোমা হামলার ৩ বছর পুর্তি হলো আজ।

এ ঘটনায় ১৩২ জনের নামে চার্জ গঠন করেছে পুলিশ। আদালতে চলছে মামলার স্বাক্ষ্য গ্রহন। ব্যাপক তদন্ত শেষে পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনাটির সাথে জামায়াত-শিবির জড়িত।

পুলিশ ও এলাকাবাসির সাথে কথা বলে জানা গেছে, ২০১৪ সালের ১৪ জানুয়ারী গভীর রাতে কুড়িগ্রামের উলিপুর থেকে ছেড়ে আসা ছেড়ে ঢাকাগামী খলিল এক্সক্লুসিভ’র একটি নৈশ কোচ (ঢাকা-মেট্রো-ব-১১-৬৮৬০) মিঠাপুকুর উপজেলার জায়গীর ফতেপুর নামক স্থানে পৌঁছামাত্র র্দুবৃত্তরা পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে। এতে, ঘটনাস্থলেই নারী ও শিশুসহ ৬ জন যাত্রী মারা যান। মারাতœক অগ্নিদগ্ধ হন ১২ জন। হতাহতদের অধিকাংশই কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার স্থায়ী বাসিন্দা। এ ঘটনায় মিঠাপুকুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবদুর রাজ্জাক বাদী হয়ে ৮৭ জনের নাম উলে¬খ করে আরও অজ্ঞাত ৪০/৫০ জনের নামে সন্ত্রাস বিরোধী আইন ২০০৯ (সংশোধনী ২০১২) এর ৬/১২ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার নম্বর- ১৯, তারিখ- ১৪/০১/২০১৪ইং।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মিঠাপুকুর থানার তৎকালীন পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) নজরুল ইসলাম ১৩২ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন। মিঠাপুুকুর থানার অফিসার ইনচার্জ হুমায়ুন কবীর বলেন, চার্জশিটভূক্ত ১৩২ জনের মধ্যে ৮৬ জনকে গ্রেফতার করে আদালতে সোর্পদ করা হয়েছে। পলাতক আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান ওসি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন অর রশিদ বলেন, সেই রাতের মর্মাত্মিক দৃশ্যের কথা মনে হলে গা শিউরে উঠে। তিনি আরও বলেন, যখন হতাহতদের উদ্ধার করে হাতপাতালে পাঠাচ্ছিলাম, তখন ঘন কুয়াশার মাঝেও দেখা গেছে ঘটনাস্থলের একটু দুরের পুকুর থেকে অগ্নিদগ্ধ মানুষ ‘বাঁচাও বাঁচাও’ বলে উঠে আসছে। তাদের পরনে কোন বস্ত্র ছিল না।



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই