মেইন ম্যেনু

ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শামীম গুলিবিদ্ধ

৩৬ ঘণ্টা পর মামলা, ৩ অজ্ঞাত আসামি

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য ও ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এনামুল হক শামীম গুলিবিদ্ধ হওয়ার প্রায় ৩৬ ঘণ্টা পর মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় তিন জনকে আসামি করা হয়েছে। তবে তারা সবাই অজ্ঞাত বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়।

শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে শামীমের চাচা নাসির উদ্দিন বাদী হয়ে ধানমণ্ডি থানায় দণ্ডবিধির ৩২৬/ ৩০৭/ ৩৪ ধারায় মামলাটি দায়ের করেন।

ধানমণ্ডি থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এজাহারে উল্লেখ করা হয়, বিএনপি জামায়াত অথবা কোনো রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ হামলা করতে পারে।

এর আগে শুক্রবার রাত ৮টায় মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে ধানমণ্ডি থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক বলেন, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত মামলা করা হয়নি। তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে। পরিবারে লোকজন মামলা করতে আসার কথা ছিল। অবশ্য সবাই শামীমের চিকিৎসা নিয়ে ব্যস্ত থাকায় মামলা করতে বিলম্ব হচ্ছে। তবে ঘটনার পর থেকেই জড়িতদের গ্রেপ্তার করতে অভিযান চালানো হচ্ছে।

মামলা দায়েরে বিলম্ব হলেও ঘটনার পরই ছায়া তদন্ত শুরু করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে, ঘটনার পরই গোয়েন্দা পুলিশ ছায়া তদন্তের অংশ হিসেবে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। আহত এনামুল হক শামীম এবং তার পরিবারের লোকজনের সঙ্গেও কথা বলেছে। এ ঘটনায় সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে তারা কাজ করছেন। তাদের কয়েকটি টিম অপরাধীদের গ্রেপ্তার করতে চেষ্টা করছে বলেও সূত্র জানায়।

গত বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে ধানমণ্ডির ৯/এ নম্বর সড়কে দুর্বৃত্তরা এনামুল হক শামীমকে গুলি করে। এসময় তার বাম হাতে দুটি গুলি বিদ্ধ হয়।

আহত শামীমের ভাই জাতীয় নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থার পরিচালক একেএম আমিনুল হক বলেন, ‘শামীমের অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। তবে গুলিবিদ্ধ জাগায় সংক্রমণ বা পচন ধরে কি না সে আশঙ্কায় চিকিৎসকরা নিবির পর্যবেক্ষণে রেখেছেন।’

শামীম বর্তমানে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের (সিএমএইচ) নিবির পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি আছেন।






মন্তব্য চালু নেই