মেইন ম্যেনু

মন্ত্রীর পথে প্রতিমন্ত্রী, এবার গাইলেন মানকিন

‘ধন-ধান্য পুষ্পে ভরা আমাদের এই বসুন্ধরা। তাহার মাঝে আছে দেশ এক সকল দেশের সেরা। ও সে স্বপ্ন দিয়ে তৈরি সে দেশ, স্মৃতি দিয়ে ঘেরা…।’ জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জের চার দেয়ালে প্রতিধ্বনিত হতে থাকে দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের এই গানটি। শুধু চার দেয়ালে নয়, উপস্থিত সবার হৃদয়েও যেন ধ্বনিত হতে থাকে একই সুর।
রোববার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে একটি সেমিনারের আয়োজন করে জাতীয় তৃণমূল প্রতিবন্ধী সংস্থা। ‘সামাজিক নিরাপত্তামূলক কর্মসূচিতে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অর্ন্তভুক্তকরণ’ শীর্ষক এই জাতীয় সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী প্রমোদ মানকিন।
সেমিনারে বক্তব্য শেষে উপস্থিত সবাইকে নিয়ে সমবেত কণ্ঠে দেশত্ববোধক গান গেয়ে উঠেন প্রতিমন্ত্রী। উপস্থিত সবাই প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে স্বতঃস্ফূর্তভাবে কণ্ঠ মেলায়।
এর আগে প্রতিমন্ত্রী সবার উদ্দেশে বলেন, ‘বাংলাদেশটি আমাদের সকলের। আমদেরকেই এই দেশটিকে ভালোবাসতে হবে। আমরা সবাই মিলে নিজেদের দেশটিকে সাজাবো।’
লতিফ সিদ্দিকী প্রসঙ্গে প্রমোদ মানকিন বলেন, ‘অনেকেই লতিফ সিদ্দিকীকে মন্ত্রিসভা থেকে বাদ দেয়ার দাবি জানিয়েছে। এটা তো দাবি জানানোর বিষয় না। প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্য শোনার পর নিজে থেকেই লতিফ সিদ্দিকীকে বাদ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। মানুষের শরীরে সামান্য একটি কাঁটা বিধলে সারা শরীর যন্ত্রণায় কাতর হয়ে পড়ে। সমাজেও তেমন কিছু কাঁটা থাকে। এরা শুধু অশান্তি বাড়ায়। সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য আমাদের সবাইকে মিলে এসব কাঁটা উপরে ফেলতে হবে।’
সেমিনারটির সভাপতিত্ব করেন জাতীয় তৃণমূল প্রতিবন্ধী সংস্থার সভাপতি আব্দুল হাই। এছাড়া অন্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন ডিজ্যাবিলিটি বিশেষজ্ঞ ড. আনিসুজ্জামান, সিবিএম এর প্ল্যানিং অ্যান্ড ডকুমেন্টশন অফিসার ফাহমিদা খান, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের প্রোগ্রাম ম্যানেজার নাজরানা ইয়াসমিন হীরা, এডিডি ইন্টারন্যাশনালের কান্ট্রি ডিরেক্টর শফিকুল ইসলাম, জাতীয় তৃণমূল প্রতিবন্ধী সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হালিম সরদার, অ্যাডভোকেসি অফিসার শামীমা আক্তারসহ প্রতিবন্ধী সমাজের প্রতিনিধিরা।
উল্লেখ্য, এর আগে বেশ কয়েকবার গান গেয়ে আলোচনায় আসেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মোহসীন আলী।






মন্তব্য চালু নেই