মেইন ম্যেনু

মধ্যরাতে শেষ হচ্ছে কুমিল্লা সিটি নির্বাচনের প্রচার

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আজ মধ্যরাত থেকে শেষ হচ্ছে সবধরনের প্রচার-প্রচারণা। নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টা থেকে ভোট গ্রহণের পূর্ববর্তী ৩২ ঘণ্টা এবং ভোট গ্রহণের পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টা ১ এপ্রিল রাত ১২টা পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় কোনো ব্যক্তি কোনো জনসভা আহ্বান, অনুষ্ঠান বা এতে যোগদান ও মিছিল করতে পারবে না। গতকাল সোমবার মধ্যরাত ১২টা থেকে ৩১ মার্চ সকাল ৬টা পর্যন্ত মোটর সাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

আগামী বৃহস্পতিবার কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যে ভোটগ্রহণের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। এবারই প্রথমবারের মতো এই সিটি করপোরেশনে দলীয় প্রতীকে ভোট হচ্ছে। এতে সরকারি দল আওয়ামী লীগের আঞ্জুম সুলতানা সীমা এবং রাজপথের প্রধান বিরোধী দল বিএনপির প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কুর মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার রকিব উদ্দিন মন্ডল জানান, এই নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ করার লক্ষ্যে সবধরনের কার্যকরী উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে আচরণবিধি লঙ্ঘনকারী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানা তিনি। তিনি বলেন, আমরা অভিযোগ করা মাত্র ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। এই পর্যন্ত কোথাও তেমন কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনে ২৭টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা দুই লাখ সাত হাজার ৫৫৬ জন। এই মোট ভোটারের মধ্যে এক লাখ ২৫ হাজার ৪৪৭ জন পুরুষ ভোটার এবং এক লাখ পাঁচ হাজার ১১৯ জন মহিলা ভোটার। সেখানে একজন রিটার্নিং অফিসার, নয়জন সহকারী রিটার্নিং অফিসার কাজ করবেন। মোট ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১০৩টি এবং সেখানে ভোটকক্ষ থাকছে ৬২৮টি। প্রিজাইডিং অফিসার থাকছেন ১০৩ জন। সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার থাকছেন ৬২৮ জন। পোলিং অফিসার থাকছেন এক হাজার ২৫৬ জন।

নির্বাচন সুষ্ঠু করতে ইতোমধ্যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিসহ প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে নির্বাচন কমিশন। গতকাল থেকে কুমিল্লায় নেমেছে বিজিবি। নিজেদের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে এই নির্বাচনকে সুষ্ঠু করার চ্যালেঞ্জ নিয়েছে নতুন নির্বাচন কমিশন।






মন্তব্য চালু নেই