মেইন ম্যেনু

ভয়াবহ তুষারঝড়ে বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্র : নিহত ৮

রবল তুষারঝড়ে যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি রাজ্যে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। তাপমাত্রা  নেমে গেছে হিমাঙ্কের নিচে। তুষারঝড়ে অন্তত আটজন নিহত হয়েছে। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। দেশটির অন্তত ৫০টি রাজ্যে তুষারঝড়ের ঘটনা ঘটেছে। বাফালোতে ৫ ফুট পর্যন্ত তুষারের স্তর জমা হয়েছে। সেখানে আরও তুষারপাত হতে পারে বলে পূর্বাভাসে বলা হয়েছে। এ ছাড়া নিউইয়র্কের উত্তর-পশ্চিমে ব্যাপক তুষারপাতের ঘটনা ঘটেছে।
শুধু নিউইয়র্কের আশপাশ থেকেই সাতজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে একজন গাড়ি দুর্ঘটনায়, একজন গাড়িতে আটকা পড়ে ও পাঁচজন হার্ট অ্যাটাকে মারা গেছেন।
ফ্লোরিডা ও হাওয়াইসহ অন্তত ৫০টি অঙ্গরাজ্যে তাপমাত্রা আশঙ্কাজনক হারে কমে গেছে। প্রবল তুষারপাতের কারণে রাস্তাঘাট বন্ধের পাশাপাশি অসংখ্য যানবাহন আটকা পড়েছে। বাড়িঘরেও অনেক লোকজন আটকা পড়ায় প্রকৃত মৃতের সংখ্যা আরও বেশি বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
নিউইয়র্কের গভর্নর অ্যান্ড্রিউ কোমো জানিয়েছেন, ন্যাশনাল গার্ডের অন্তত শতাধিক সদস্য নিয়োগ করা হয়েছে। রাস্তাঘাট পরিষ্কার ও আটকে পড়া যানবাহন উদ্ধারে কাজ চলছে।
চলমান তুষারঝড় অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করতে পারে বলে আশঙ্কা ব্যক্ত করেছেন কোমো।
রেকর্ড পরিমাণ তুষারপাতের কারণে লোকজন গাড়ি ও বাড়িঘরে আটকা পড়েছে। নায়াগ্রার কাছে নগরীর দক্ষিণের অনেক এলাকায় ২৪ ঘণ্টারও কম সময়ের মধ্যে চার থেকে পাঁচ ফুট উচ্চতার তুষার জমে যায়। ইরি কাউন্টির নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক পোলোনকার্জ স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, কাউন্টির অনেক এলাকায় মাত্র তিনদিনে রেকর্ড পরিমাণ তুষারপাতের ঘটনা ঘটেছে। এতে চারজনের মৃত্যু হয়েছে।
সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, তুষারপাতের ঘটনায় অনেক গাড়ি রাস্তায় আটকা পড়েছে এবং লোকজন বাড়ি থেকে বেরোতে পারছে না। নিউইয়র্কের পশ্চিমাঞ্চল বরফে ছেয়ে গেছে। অঙ্গরাজ্যটির বাফেলো নগরসহ আশপাশের জনপদে গত মঙ্গলবার রাতে প্রায় ছয় ফুট বরফের স্তূপ জমা হয়েছে।
আবহাওয়া বিভাগ জানায়, ২৪ ঘণ্টায় কোনো কোনো স্থানে প্রায় ৪৮ ইঞ্চি বরফের স্তূপ জমতে পারে। প্রতি ঘণ্টায় তিন-চার ইঞ্চি তুষারপাতে অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। ঘণ্টায় ৪০ মাইল বেগে দমকা হাওয়া বইছে। এর মধ্যে অবিরাম তুষারপাতে জনজীবন কার্যত অচল হয়ে পড়েছে। মহাসড়কে যান চলাচল সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করেছেন নিউইয়র্কের গভর্নর অ্যান্ড্রু কোমো। সড়কে বরফে আটকেপড়া যানবাহন ও যাত্রীদের নিরাপত্তার জন্য ন্যাশনাল গার্ড মোতায়েন করা হয়েছে। রাজ্য কর্তৃপক্ষ থেকে আটকেপড়া লোকজনের জন্য জরুরি শীতবস্ত্র, খাদ্য ও পানীয় পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। নিউইয়র্ক ছাড়া অন্য রাজ্যগুলোতেও তাপমাত্রা দ্রুত নিচের দিকে নামতে থাকে। গভর্নর অ্যান্ড্রু কোমো জানান, ভুক্তভোগী লোকজনকে সহযোগিতা করতে ন্যাশনাল গার্ডের সদস্যদের ডেকে পাঠানো হয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রের আবহাওয়া বিভাগ জানায়, প্রত্যেকটি রাজ্যেই তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নিচে নেমে গেছে। ১৯৭৬ সালের পর নভেম্বর মাসে এত বেশি তুষারপাত আর হয়নি। প্রতি ঘণ্টায় প্রায় ৫ ইঞ্চি পরিমাণ তুষারপাত হচ্ছে। ২৪ ঘণ্টায় প্রায় ৭০ ইঞ্চি তুষারপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া বিভাগ। বিবিসি, নিউইয়র্ক টাইমস।






মন্তব্য চালু নেই