মেইন ম্যেনু

ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে এবারও সমালোচনার মুখে খালেদা

গত বছর অমর একুশে ফেব্রুয়ারিতে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে গেলে সেখানে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। দলীয় চেয়ারপারসনের উপস্থিতিতে বিএনপির নেতাকর্মীরা জুতা পায়ে শহীদ মিনারের মূল বেদীতে উঠে বিতর্কের জন্ম দিয়েছিলেন।

এবার জুতা পায়ে না উঠলেও মূল বেদীর যে স্থানে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয় ঠিক সেখানে উঠে শহীদদের শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বেগম খালেদা জিয়া। এর ফলে সমালোচনার মুখে পড়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন। অনেকে বলছেন, শহীদদের রক্তে ভেজা মূল বেদীতে উঠায় শহীদদের অসম্মান করা হয়েছে।

এবিষয়ে অমর একুশে উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, আমাদের জাতীয় নেতৃবৃন্দের কাছ থেকে এরকম ব্যবহার অপ্রত্যাশিত। তাদের জেনে আসা উচিত শ্রদ্ধা জানাতে শহীদ মিনারের কোথায় পর্যন্ত উঠা যায়।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা নিবেদন করার স্থানেই বিএনপির চেয়ারপারসন ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। ওই সময় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সদস্য গণমাধ্যম কর্মীসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, শাসক দলের বুদ্ধিজীবীরা এসব কথা বলে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।

প্রসঙ্গত, একুশের প্রথম প্রহরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের শ্রদ্ধা নিবেদনের পর শহীদ মিনার সবার জন্য খুলে দেওয়া হয়।

রীতি অনুযায়ী খালি পায়ে মূল বেদীতে পুষ্পাঞ্জলি রেখে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানান সবাই। রাত ১টা ২৮ মিনিটে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপি নেতৃবৃন্দ শহীদ মিনারে ফুল নিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে এগিয়ে যান। এ সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোভার স্কাউটের সদস্যররা মানবপ্রাচীর তৈরি করে তাদের শহীদ মিনারের মূল বেদীর কাছে নিয়ে যান। কিন্তু বিএনপি চেয়ারপারসন ও দলটির নেতাকর্মীরা শহীদ মিনারের মূল বেদীতে উঠে পড়েন।






মন্তব্য চালু নেই