মেইন ম্যেনু

ব্লুফিল্ম দেখলে দুর্বল হয় পুরুষ

বিয়ের পর সংসার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো প্রেম-ভালোবাসা। দাম্পত্য জীবনে এই প্রেম-ভালোবাসাকে মজবুত করে শরীরের বন্ধন। কিন্তু সে শরীরও অনেক সময় বেঁকে বসে। তখন পুরুষরা বিভিন্নভাবে মিলনের ক্ষমতা বাড়াতে চান, অটুট রাখতে চান। ওই একই বিষয়ে কেউ কেউ চলে যান ভুল পথে।

ভুল পথ কী?
অনেকেই মনে করেন, উত্তেজক দৃশ্য দেখলে শরীরে উত্তেজনা বাড়ে। কথাটি একশ ভাগ সত্য। কিন্তু ওই উত্তেজনা কি দীর্ঘস্থায়ী নাকি সাময়িক?

উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে- যে পুরুষ মিলনের দুর্বলতা কাটাতে ব্লুফিল্ম বা নীল ছবির দিকে ঝোঁকেন, তিনি নিজেই নিজের সর্বনাশ ডেকে আনেন। যদি তিনি এতে আসক্ত হয়ে পড়েন, তবে পক্ষে একসময় স্ত্রীমিলন আর সম্ভব হবে না। এমন কথাই বলে থাকেন গবেষকরা।

বিভিন্ন গবেষণায় উঠে এসেছে, যারা ব্লু ফিল্মে আসক্ত হন তারা স্ত্রী মিলনের সক্ষমতা কিছুটা হলেও হারিয়ে ফেলেন। কারণ

পর্নো ফিল্মে যে ধরণের যৌনকর্ম দেখা যায়, তা বাস্তবতা থেকে অনেক দূরে। এগুলোকে বলা হয় সেক্সুয়াল ফ্যান্টাসি। আর যিনি ওইসব ভিডিও দেখায় আসক্ত হবেন তিনি স্ত্রীর সঙ্গে স্বাভাবিক মিলনে সুখ পাবেন না। আর এই সুখ না পাওয়া থেকে আসবে হতাশা, হতাশা থেকেই নেমে আসবে পুরুষত্বহীনতা বা যৌন দুর্বলতা।

এছাড়া নীল ছবি সামাজিক অবক্ষয়েরও একটি বড় কারণ। তাই দাম্পত্য জীবনে সুখী থাকতে হলে, নীল ছবির ধারে কাছে না যাওয়াই ভালো।কল্পনার রাজ্য স্থায়ী হয় না।






মন্তব্য চালু নেই